শিরোনাম

Author Archives: Matiar Chowdhury

লন্ডনন্থ বাংলাদেশ মিশনে হামলাকারীদের বিচারের দাবীতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরাবরে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের স্মারকলিপি প্রদান

লন্ডন প্রতিনিধিঃ লন্ডনস্থ বাংলাদেশ মিশনে গেল ৭ইফেব্রুয়ারী যুক্তরাজ্য বিএনপি‘র নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাসীরা মিশনে হামলা চালিয়ে সরকারী সম্পত্তি ধ্বংশ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অবমাননা ও মিশনকর্মকর্তাদের মারধর করার দোষীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ও ফরেন মিনিষ্টার বসির জনসন বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছে ‘‘বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম’’ গ্রেটার লন্ডন শাখা। গেল ২১ ফ্রেব্রুয়ারী গ্রেটার লন্ডন বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফেরামের একটি প্রতিনিধি দল ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রীর অফিস ১০নং ডাউনিংষ্ট্রিট ও ফরেন মিনিষ্টার বরিস জনসনের অফিসে এই স্মারকলিটি প্রদান করেন। এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রবীন সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ, গ্রেটার লন্ডন বঙ্গবন্ধু লেখখ সাংবাদিক ফোরামের প্রেসিডেন্ট বাতিরুল হক সরদার, সেক্রেটারী শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলাল, সোনার তরী শিল্পিগোষ্ঠীর নেত্রী রুমী হক, যুবনেতা জামাল খান ও বাবলু মিয়া। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ও ফরেন মিনিষ্টটারের পক্ষে স্মারকলিটি গ্রহন করেন উভয় অফিসে কর্মরত দুজন কর্মকর্তা। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে জামাত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা এই হামলা চালায়। হামলাকারী সন্ত্রাসীদের বিচার ও তারেক রহমানকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তরের দাবী জানানো হয়।

লন্ডনন্থ বাংলাদেশ মিশনে হামলাকারীদের বিচারের দাবীতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরাবরে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের স্মারকলিপি প্রদান
লন্ডন প্রতিনিধিঃ লন্ডনস্থ বাংলাদেশ মিশনে গেল ৭ইফেব্রুয়ারী যুক্তরাজ্য বিএনপি‘র নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাসীরা মিশনে হামলা চালিয়ে সরকারী সম্পত্তি ধ্বংশ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অবমাননা ও মিশনকর্মকর্তাদের মারধর করার দোষীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ও ফরেন মিনিষ্টার বসির জনসন বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছে ‘‘বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম’’ গ্রেটার লন্ডন শাখা।1742EB65-7D52-4457-82B2-B6FC5C7306C1
গেল ২১ ফ্রেব্রুয়ারী গ্রেটার লন্ডন বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফেরামের একটি প্রতিনিধি দল ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রীর অফিস ১০নং ডাউনিংষ্ট্রিট ও ফরেন মিনিষ্টার বরিস জনসনের অফিসে এই স্মারকলিটি প্রদান করেন। এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রবীন সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ, গ্রেটার লন্ডন বঙ্গবন্ধু লেখখ সাংবাদিক ফোরামের প্রেসিডেন্ট বাতিরুল হক সরদার, সেক্রেটারী শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলাল, সোনার তরী শিল্পিগোষ্ঠীর নেত্রী রুমী হক, যুবনেতা জামাল খান ও বাবলু মিয়া। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ও ফরেন মিনিষ্টটারের পক্ষে স্মারকলিটি গ্রহন করেন উভয় অফিসে কর্মরত দুজন কর্মকর্তা। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে জামাত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা এই হামলা চালায়। হামলাকারী সন্ত্রাসীদের বিচার ও তারেক রহমানকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তরের দাবী জানানো হয়।

Bangabandhu Writers Forum hands in memorandum to British Prime Minister

Following an attack on Bangladesh High Commission in London and the defamation of Bangabandhu’s portrait on 7 February 2018 the ‘Bangabandhu Writer & Journalist Forum’, Greater London branch handed in a memorandum to British Prime Minister Theresa May and the Foreign Minister Boris Johnson demanding action.

A delegation led by Greater London Committee’s Chair Batirul Haque Shorder went to 10 Downing Street & Foreign & Commonwealth Office on 21 February to hand over the memorandum. Other members of the delegations were Greater London Committee’s Secretary Shah Mustafizur Rahman Belal, Executive Member Bablu Miah, Sonar Tori’s Rumy Haque, Central Committee’s Vice Chair Ansar Ahmed Ullah & Joint Secretary Jamal Khan.unnamed1
The Chairperson Batirul Haque Shorder said the protesters entered forcefully and vandalised Bangladesh’s founder Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman’s portrait. They took the portrait outside and attempted to burn it. This is highly insulting to the Bengali people both here in the UK and globally.

The memorandum condemned police’s failure to take any action against the perpetrators while the attack took place and allowed the defamation of Bangladesh’s founding father Bangabandhu Sheik Mujibur Rahman. The memorandum addressed to the Prime Minister & & the Foreign Minister demanded that the UK authorities take this matter seriously by taking stern action against those responsible for the attack.

লন্ডন বাংলাদেশ হাই কমিশনের যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে মহান শহীদ দিবস উদযাপন ——-আনসার আহমেদ উল্লাহ

লন্ডনঃদিনের শুরুতে হাই কমিশনার মোঃ নাজমুল কাওনাইন হাই কমিশন ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন। বেলা ১১:০০ ঘটিকায় সেন্ট্রাল লন্ডনের ঐতিহ্যবাহী বেডেন পাওয়েল হাউজে মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষাদিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে হাই কমিশন কর্তৃক এক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ওইউনেস্কো মহাপরিচালকের বাণী পাঠ করা হয়। আলোচনা সভায় মূখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট কলামিস্ট, সাংবাদিক, ও অমর একুশে ফেব্রুয়ারীর “আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারী” গানের রচয়িতাআবদুল গাফ্ফার চৌধুরী।b

ভাষা আন্দোলনের শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে তিনি তাঁর বক্তব্য শুরু করেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ভাষা আমাদেরকে একটি দেশ দিয়েছে। আজ সারা বিশ্বে বাংলা ভাষার ব্যবহার হচ্ছে।তিনি ভাষা আন্দোলনকালীন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে কারা অন্তরীণ সময়ের স্মৃতিচারণ করেন।অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্য সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিসের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের উপপ্রধান, ইউকে ন্যাশনাল কমিশন ফর ইউনেসস্কোর প্রতিনিধি মিজ্ আন্দ্রেয়া ব্লিক ও সাবেক এমপি স্যারএলান মিল। সভায় আমন্ত্রিত বাংলাদেশ কমিউনিটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরীফ, ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ গণি, যুক্তরাজ্য মহিলাআওয়ামী লীগের সভাপতি খালেদা মোশতাক কোরাইশী, মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হোসেন, লন্ডনস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার কমিটির সদস্য আনছারুল হক এবং বাংলাদেশের প্রথম ডাকটিকেটের নকশা প্রণেতা বিমান মল্লিক।অনুষ্ঠানে মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মূলধারার সাথে সঙ্গতি রেখে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় এবং দিবসটির উপর নির্মিত একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বাংলা প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ এবং হাই কমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

কাউন্সিলার শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলাল সাংবাদিকতা রাজনীতি ও কমিউনিটি সেবার মাধ্যমে সকলের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে হয়েছিলেন

লন্ডনঃ কাউন্সিলার শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলাল ছিলেন একজন সাদামনের মানুষ, সাংবাদিকতা, রাজনীতি ও কমিউনিটি সেবার মাধ্যমে তিনি সকলের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে হয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী এই মানুষটি কোনদিনই ধর্মান্ধতা ও উগ্রবাদের সাথে আপোষ করেননি। তার মৃত্যুতে লন্ডনের বাঙ্গালী কমিউনিটি হারিয়েছে আপনজনকে। গেল ১৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় ইষ্ট লন্ডনের খৃষ্টান ষ্ট্রীটের চিলড্রেন এডুকেশন সেন্টারে বিএএফ (বাংলাদেশী এক্টিভিষ্ট ফোরাম) আয়োজিত স্মরন সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। যুবলীগের প্রতিষ্টাতা সেক্রেটারী, বাংলাদেশ জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট,লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব সহ একাধিক সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন।unnamed1
তার প্রতিষ্টি অনলাইন ‘প্রবাসে বাংলাদেশের’’ মাধ্যমে আমাদের কমিউনিটির বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন। তার নামে টাওয়ার হ্যামলেটস এলাকায় একটি স্থাপনার নাম করনের দাবী জানান বক্তারা। মিঃ হাবিব আলী মাখনের সভাপতিত্বে ও আব্দুল মালিক খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ থেকে আগত সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী ও সিলেট-২ আসনের সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী। অনুষ্টানের শুরুতে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন তার সহযোদ্ধা সাবেক কাউন্সিলার নুরুদ্দিন আহমদ। শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলালের কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে বক্তব্য রাখেন সাবেক কাউন্সিলার রাজনীতিবিদ রাজন উদ্দিন জালাল,সাবেক কাউন্সিল লিডার হেলাল উদ্দিন আব্বাস, টাওয়ার হ্যামলেট কাউন্সিলের সাবেক স্পীকার কাউন্সিলার আব্দুল মুকিত চুনু এমবিই, সাবেক কাউন্সিলার ফানু মিয়া, সাবেক মেয়র আবুল আসাদ, সাবেক স্পীকার কাউন্সিলার খালিছ উদ্দিন, সাবেক কাউন্সিলার আব্দুস শুকুর, সাবেক মেয়র ছয়ছুল আলম, সাবেক মেয়র দরছ উল্লাহ, সাবেক মেয়র সেলিম উল্লাহ, সাবেক কাউন্সিলার সৈয়দ মিজান, চুনু মিয়া, শেখ মোহাম্মদ নূর, মোহাম্মদ সিরাজ জোয়ারদার, ব্ঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের লন্ডন শাখার সভাপপতি বাতিরুল হক সরদার, লোকমান উদ্দিন আহমদ, বশির উদ্দিন, সাংস্কৃতিক কর্মী মোস্তফা কামাল মিলন, আলতাফ হোসেন আলতা, যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্মসম্পাদক জামাল খান, রাজনীতিবিদ গয়াছুর রহমান গয়াছ, সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ, সাংবাদিক মতিয়ার চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলার বদরুল আলম, সাংবাদিক সরওয়ার হোসেন, সাবেক কাউন্সিলার মতিনু জ্জামান, লুৎফুর রহমান সায়াদ প্রমুখ।

কাউন্সিলার শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলাল সাংবাদিকতা রাজনীতি ও কমিউনিটি সেবার মাধ্যমে সকলের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে হয়েছিলেন
লন্ডনঃ কাউন্সিলার শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলাল ছিলেন একজন সাদামনের মানুষ, সাংবাদিকতা, রাজনীতি ও কমিউনিটি সেবার মাধ্যমে তিনি সকলের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে হয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী এই মানুষটি কোনদিনই ধর্মান্ধতা ও উগ্রবাদের সাথে আপোষ করেননি। তার মৃত্যুতে লন্ডনের বাঙ্গালী কমিউনিটি হারিয়েছে আপনজনকে। গেল ১৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় ইষ্ট লন্ডনের খৃষ্টান ষ্ট্রীটের চিলড্রেন এডুকেশন সেন্টারে বিএএফ (বাংলাদেশী এক্টিভিষ্ট ফোরাম) আয়োজিত স্মরন সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। যুবলীগের প্রতিষ্টাতা সেক্রেটারী, বাংলাদেশ জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট,লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব সহ একাধিক সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। তার প্রতিষ্টি অনলাইন ‘প্রবাসে বাংলাদেশের’’ মাধ্যমে আমাদের কমিউনিটির বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছেন। তার নামে টাওয়ার হ্যামলেটস এলাকায় একটি স্থাপনার নাম করনের দাবী জানান বক্তারা। মিঃ হাবিব আলী মাখনের সভাপতিত্বে ও আব্দুল মালিক খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ থেকে আগত সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী ও সিলেট-২ আসনের সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী। অনুষ্টানের শুরুতে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন তার সহযোদ্ধা সাবেক কাউন্সিলার নুরুদ্দিন আহমদ। শাহাব উদ্দিন আহমদ বেলালের কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে বক্তব্য রাখেন সাবেক কাউন্সিলার রাজনীতিবিদ রাজন উদ্দিন জালাল,সাবেক কাউন্সিল লিডার হেলাল উদ্দিন আব্বাস, টাওয়ার হ্যামলেট কাউন্সিলের সাবেক স্পীকার কাউন্সিলার আব্দুল মুকিত চুনু এমবিই, সাবেক কাউন্সিলার ফানু মিয়া, সাবেক মেয়র আবুল আসাদ, সাবেক স্পীকার কাউন্সিলার খালিছ উদ্দিন, সাবেক কাউন্সিলার আব্দুস শুকুর, সাবেক মেয়র ছয়ছুল আলম, সাবেক মেয়র দরছ উল্লাহ, সাবেক মেয়র সেলিম উল্লাহ, সাবেক কাউন্সিলার সৈয়দ মিজান, চুনু মিয়া, শেখ মোহাম্মদ নূর, মোহাম্মদ সিরাজ জোয়ারদার, ব্ঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের লন্ডন শাখার সভাপপতি বাতিরুল হক সরদার, লোকমান উদ্দিন আহমদ, বশির উদ্দিন, সাংস্কৃতিক কর্মী মোস্তফা কামাল মিলন, আলতাফ হোসেন আলতা, যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্মসম্পাদক জামাল খান, রাজনীতিবিদ গয়াছুর রহমান গয়াছ, সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ, সাংবাদিক মতিয়ার চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলার বদরুল আলম, সাংবাদিক সরওয়ার হোসেন, সাবেক কাউন্সিলার মতিনু জ্জামান, লুৎফুর রহমান সায়াদ প্রমুখ।
unnamed

ব্রিটিশ-বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের সাফল্যে ব্রিটিশ সরকার গর্বিত ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিস মিনিষ্টার লর্ড আহমেদ

pict-2লন্ডন প্রতিনিধি: শিক্ষাক্ষেত্রে ব্রিটিশ-বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের সাফল্যে শুধু বাংলাদেশ সরকার বা বাংলাদেশী কমিউনিটিই নয়,ব্রিটিশ সরকারও গর্বিত। এমন্তব্য ব্রিটিশফরেন এন্ড কমনওয়েলথ অফিস (এফসিও) মিনিষ্টার লর্ড আহমেদের। গত ১৭ই ফেব্রুয়ারী শনিবার দুপুরে ওয়েষ্ট লন্ডনের কেনজিংটন টাউন হলে লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন আয়োজিত ২০১৭ সালের জিসিএসই ও এ লেভেল পরীক্ষায় ভাল ফলাফল অর্জনকারী ছাত্রছাত্রীদের এচিভমেন্ট এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন এরা ব্রিটিশ সরকারেরও সম্পদ। বাংলাদেশ ও ব্রিটেনের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হওয়া ষ্টুডেন্ট এ্যাচিভমেন্ট অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন লন্ডনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার নাজমুল কাওনাইন।
মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেয়ার আগে প্রধান অতিথির বক্তব্যে
pict-3pict-4
এফসিও মিনিষ্টার আরও বলেন, শিক্ষা এমন এক সম্পদ যা কখনও কেউ ছিনিয়ে নিতে পারেনা। সেই সম্পদ অর্জনের সংগ্রামে প্রাথমিক সাফল্য অর্জনকারী একঝাঁক মেধাবীর সামনে কথা বলতে গিয়ে আমি আজ খুব গর্ব অনুভব করছি। এই একঝাঁক মেধাবী মাল্টিকারচারেল ব্রিটিশ সোসাইটির সম্পদ এমন মন্তব্য করে ব্রিটিশ ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ মিনিষ্টার বলেন, আজকের অনুষ্ঠানে এই হলের ভেতরেই হয়তো আছেন ব্রিটেনের আগামী প্রধানমন্ত্রী, ভবিষ্যত ফরেন সেক্রেটারী। রাষ্ট্র ও সমাজ পরিচালনার আগামী কারিগররা আমার সামনে বসে আছেন, এরচেয়ে গর্বের আমাদের আর কি হতে পারে।আগামী এপ্রিলে লন্ডনে আয়োজিত কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের আসন্ন সম্মেলনের খবর দিয়ে ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ মিনিষ্টার বলেন ৫৩টি দেশের ২.৪ বিলিয়ন মানুষের সুন্দর ভবিষ্যতের পরিকল্পনা গ্রহনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীসহ কমনওয়েলথ রাষ্ট্রনেতারা জড়ো হচ্ছেন লন্ডনে। কমনওয়েলথ সংস্থাভুক্ত ৫৩টি দেশের ২.৪ বিলিয়ন জনসংখ্যার মধ্যে ৬০ ভাগের বয়সই তারুণ্যের সীমানায়। এই ৬০ ভাগ জনগোষ্ঠির সমস্যা-সম্ভাবণা সামনে নিয়েই কমনওয়েলথ এখন এগুতে চায়।
তিনি জানান, কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানদের কনফারেন্সে এবারই প্রথম প্রতিটি দেশের ডেলিগেশনে তরুণ প্রজন্মের ১জন ছেলে ও একজন মেয়ে প্রতিনিধি যোগদান করার সুযোগ রাখা হয়েছে। তরুণ প্রজন্মের সমস্যা-সম্ভাবণা শুনে তাদের প্রতিনিধির মতামত নিয়েই সুন্দর আগামীর পরিকল্পনা তৈরী করতে চায় কমনওয়েলথ। ব্রিটিশ-বাংলাদেশী এই প্রজন্মের মেধা এক্ষেত্রে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে বলে মন্তব্য করেন এফসিও মিনিষ্টার।
ব্রিটেন-বাংলাদেশের পারস্পরিক সম্পর্ক ঐতিহাসিক মন্তব্য করে ব্রিটিশ ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ মিনিষ্টার বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষা ও সামাজিক উন্নয়নে ব্রিটেন
সব সময় পাশে আছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইস্যুতেও দুইদেশ ঐক্যবদ্ধভাবে ভূমিকা রাখছে।রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করে লর্ড আহমেদ বলেন, স্মরণকালের মানবিক এই দুর্যোগে বাংলাদেশ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের পাশে যেভাবে দাড়িয়েছে তা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশটিকে আলাদা একটি শ্রদ্ধার আসন এনে দিয়েছে। রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবেলায় ব্রিটেন বাংলাদেশের পাশে আছে এমন মন্তব্য করে এফসিও মিনিষ্টার বলেন এটি বাংলাদেশের একার নয়, আন্তর্জাতিক সংকট। এই সংকট মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই বাংলাদেশের পাশে দাড়াতে হবে। এক্ষেত্রে ব্রিটেন সবধরনের সহযোগিতা নিয়ে পাশে আছে বাংলাদেশের। বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক অগ্রযাত্রার প্রশংসা করে উন্নয়নের এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে অংশগ্রহনমূলক একটি সুষ্টু নির্বাচনের বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন লর্ড আহমেদ।
এচিভমেন্ট এওয়ার্ড নিতে আসা ব্রিটিশ-বাংলাদেশী মেধাবী ছাত্রছাত্রী ও অতিথিদের অনুষ্ঠানে স্বাগত জানিয়ে হাই কমিশনার নাজমুল কাওনাইন বলেন, ব্রিটিশ-বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের আজকের এ সাফল্যে বাংলাদেশ গর্বিত। ব্রিটিশ মাল্টিকালচারাল সোসাইটিতে জন্ম ও বেড়ে ওঠা প্রজন্মের এই মেধার সুফল থেকে বাংলাদেশ যেন বঞ্চিত না হয় এচিভারদের প্রতি এমন আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ-ব্রিটেন দুদেশেরই সন্তান তোমরা। আর তাই ব্রিটিশ ফরেন এন্ড কমনওয়েলথ মিনিষ্টারসহ অন্যান্য ব্রিটিশ রাজনীতিকদের সাথে নিয়েই আমরা তুমাদের এ সাফল্য উদযাপন করছি। তিনি বলেন, আজকের এ অর্জন সফলতার সীমানায় প্রবেশ মাত্র, আরও অনেক দুর যেতে হবে তুমাদের। সাফল্যের যে অগ্রযাত্রা শুরু হলো সেটি যেন অব্যাহত থাকে, বাংলাদেশ এটিই চায় তুমাদের কাছে। হাই কমিশনার বলেন, সাফল্যের চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌছার মাধ্যমে যে মেধা সঞ্চয় হবে সেই মেধা থেকে তুমাদের শিকড়ভূমি যেন বঞ্চিত না হয়, আজকের দিনে এটিই তুমাদের কাছে আমাদের চাওয়া। হাই কমিশনার বলেন, তুমাদের সাফল্যে কমিউনিটি গর্বিত। মেধা ও দক্ষতার গুনে ভবিষ্যতে তোমরাই হবে ব্রিটেন-বাংলাদেশের সেতুবন্ধন। কৃতি শিক্ষার্থীদের বাঙালী জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষন পাঠ করার পরামর্শ দিয়ে হাই কমিশনার বলেন, ইউনেস্কো স্বীকৃত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ এই ভাষন থেকে তোমাদের শিকড়ভূমি বাংলাদেশের দীর্ঘ সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধে ইতিহাস খুব সহজেই জানতে পারবে। বাংলাদেশ সরকারের সাম্প্রতিক উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পর্কেও আলোকপাত করেন নাজমুল কাওনাইন তাঁর বক্তৃতায়। বক্তব্যের পর হাই কমিশনারকে সাথে নিয়ে জিসিএসই ও এ লেভেল পরাক্ষায় কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনকারী ১শ ৩জন ছাত্রছাত্রী যারা জিসিএসই তে কমপক্ষে ১০টি এ* ও এ এবং এ লেভেলে ৩টি এ* ও এ পেয়েছে তাদের হাতে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট তুলে দেন লর্ড আহমেদসহ অন্যান্য অতিথিরা।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাউস অব লর্ডসের ইন্টারন্যাশনাল রিলেশন্স কমিটির চেয়ার লর্ড হাওয়েল অব গিলফোর্ড পিসি, বাংলাদেশ বিষয়ক অল পার্টি পার্লামেন্টারী গ্রুপের ভাইস চেয়ার পল স্কেলী এমপি, ইউরোপীয়ান পার্লামেন্টের এমপি জিন লেম্বার্ট ও প্রবীন সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী।
জিসিএসই তে বাংলায় এ স্টার অর্জনকারী ১৪ জন ছাত্রছাত্রীর হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেন একুশের গানের রচয়িতা, কিংবদন্তী সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী। সার্টিফিকেট প্রদানের আগে এচিভারদের প্রশংসা করে তিনিও সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন।
ক্রেষ্ট প্রদানের ফাঁকে ফাঁকে নৃত্য পরিবেশন করেন স্থানীয় নৃত্যশিল্পীরা। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিল্পী মোস্তফা কামাল মিলনের নেতৃত্বে ‘ধনধান্যে পুষ্পে ভরা…’ গানটিও পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা।
অনুষ্ঠানে সমাপনী বক্তব্য রাখেন ডেপুটি হাই কমিশনার খোন্দকার মোহাম্মদ তালহা।

জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসলে দেশে প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করবে লন্ডনে সম্বর্ধনা সভায় বক্তারা

লন্ডনঃ জাতীয় পার্টির প্রধান লক্ষ্য প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরনের মাধ্যমে সর্বস্থরের মানুষের সার্বিক উন্নয়ন সাধন করা। আমলাতন্ত্রের থাবা থেকে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরনের মাধ্যমে সর্বস্থরে জনপ্রতিনিধিদের প্রতিনিধিত্ব প্রতিষ্টা করা। যুক্তরাজ্য জাতীয়পার্টি আয়োজিত সম্বর্ধনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। বক্তারা বলেন নতুন বাংলাদেশ গড়ার কারিগর সফল রাষ্ট্রপতি হোসেন মুহাম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে দেশে উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্টি হয়। দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের লক্ষ্যে জাতীয় পার্টি দেশে উপজেলা পদ্ধতি প্রবর্তন করে। প্রাদেশিক সরকার পদ্ধতি গঠন করার লক্ষ্য নিয়ে পল্লীবন্ধু হোসেন মুহম্মদ এরশাদ কাজ করছেন। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসলে দেশে প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করবে। যুক্তরাজ্য জাতীয় পার্টির আহবায়ক কাউন্সিলার শামসুল ইসলাম সেলিম ব্রিটিশ বাংলাদেশ ক্যাটারারর্স এসোসিয়েশনের (বিবিসিএ‘র) প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় তাঁর সম্মানে ইউকে জাতীয় পার্টি এক সম্বর্ধনা সভার আয়োজন করে। গেল ১১ ফেব্রুয়ারী বিকেলে ইষ্টলন্ডনের ব্লুমুন মিডিয়া সেন্টারে ইউকে জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এডভোকেট এবাদ হোসেনের সভাপতিত্বে এবং ইউকে জাতীয় পার্টির সদস্য সচীব সাহেদ আহমদের সঞ্চালনায় সম্বর্ধনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পর্টির ইউরোপীয়ান কোঅর্ডিনেটর মুহম্মদ মুজিবুর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেব উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পর্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা জাতীয় পর্টির জয়েন্ট কনভেনার মুহম্মদ সাইফ উদ্দিন খালেদ। সম্বর্ধনার সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওত করেন হাজী শামসুল হক। অতিথিদের ফুল দিয়ে বরন করেন মজির উদ্দিন,জবরুল ইসলাম লনি, তানভির হোসের ও সাইফ রহমান। সম্বর্ধনার জবাবে কাউন্সিলার শামসুল ইসলাম সেলিম চলার পথে সকলের দোয়া ও সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেন। সম্বর্ধনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ইউকে জাপার যুগ্ম আহবায়ক নাসির উদ্দিন হেলাল, যুক্তরাজ্য জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক মুহম্মদ আব্দুল হাই, মাসুক আহমদ যুগ্মসদস্য সচীব ইউকে জাতীয় পার্টি, সিরাজ উদ্দিন খান সাবেক সভাপতি লুটন জাতীয় পার্টি, সায়েফ রহমান যুগ্মসদস্য সচীব,কামাল আহমদ চৌধুরী সেক্রেটারী লুটন জাতীয় পার্টি, জবরুল ইসলাম লনি, সৈয়দ জহুরুল হক, ফয়েজুল ইসলাম প্রমুখ।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ছবি অবমাননাকারীদের শাস্তির দাবিতে লন্ডনে প্রতিবাদ সভা

লন্ডনঃ হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অবমাননাকারীদের শাস্তির দাবিতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম গ্রেটার লন্ডনের উদ্যোগে এক প্রতিবাদ সভা পূর্ব লন্ডনের একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়।১৫ই ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়,সংগঠনের সভাপতি বাতিরুল হক সরদারের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক শাহ রহমান বেলালের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট ২ আসনের (সাবেক এমপি)সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী । প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি মনির হোসাইন ,বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউরোপিয়ান বাংলাদেশী ফোরামের সভাপতি আনসার আহমেদ উল্লাহ ।
b b w j f -2
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান বলেন , একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের দূতাবাস প্রজাতন্ত্রের সম্পদ সেই দূতাবাসে স্বারকলিপি প্রদানের নামে কর্মসূচি দিয়ে বিএনপি সন্ত্রাসী হামলা ভাঙচুর ও জাতির জনকের ছবি অবমাননা করে যে ধৃষ্টতা দেখাল তাতে তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব ও নোংরামি প্রকাশ পেল।যে বঙ্গবন্ধু না হলে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেতাম না তাঁর ছবি অবমাননা মানে একটি জাতিসত্ত্বার প্রতি অপমান করা । তিনি ব্রিটিশ এবং বাংলাদেশ সরকারকে যৌথভাবে অ হামলাকারীদের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। সভায় প্রধান বক্তা ফোরামের যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি মনির হোসাইন বলেন , সংগঠনের পক্ষ থেকে দোষীদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে মাননীয় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে কে চিঠি দেওয়া হবে । তিনি উক্ত ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান । বিশেষ বক্তা ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ ফোরাম সভাপতি আনসার আহমেদ উল্লাহ বলেন , একটি সভ্য গণতান্ত্রিক দেশে এ ধরণের হামলা ও জাতির জনকের ছবি অবমাননার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই । তিনি দোষী সন্ত্রাসীদের দ্রুত বিচারের জোর দাবি জানান । প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে : লন্ডন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলতাফুর রহমান মুজাহিদ , যুক্তরাজ্য মহিলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ নাজমা হোসেন , মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক আবু মুসা হাসান , প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক মজুমদার আলী ,যুক্তরাজ্য বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম সম্পাদক জামাল আহমদ খান , কবি সাংবাদিক হামিদ মোহাম্মদ , যুক্তরাজ্য জাসদের কোষাধ্যক্ষ রেদওয়ান খান , ইস্ট লন্ডন আওয়ামী লীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট আবদুল হালিম , যুক্তরাজ্য শ্রমিক লীগ সভাপতি শামীম আহমদ , স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা দারা মিয়া ,বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম গ্রেটার লন্ডনের সিনিয়র সহ সভাপতি কবি ও গীতিকার সৈয়দ হিলাল সাইফ ও সহ সভাপতি লেখক নূরুন্নবী আলী প্রমুখ।
ক্যাপশনঃ ছবি আছে।
(মতিয়ার চৌধুরী লন্ডন-১৬ফেব্রুয়ারী ২০১৮।)

বিবিসিএ‘র নতুন নেতৃত্ব প্রেসিডেন্ট শামসুল ইসলাম সেলিম- সেক্রেটারী জেনারেল সেলিম চৌধুরী -ট্রেজারার তফজ্জুল মিয়া

লন্ডনঃ গতকাল ২৮ জানুয়ারী রোববার ইষ্টলন্ডনের ইমপ্রেশন ইভেন্ট ভ্যানুতে বার্ষিক কনফারেন্সের (এজিএম) মাধ্যমে বৃটেনে বাঙ্গালীদের বৃহত্তম সংগঠন ব্রিটিশ বাংলাদেশ ক্যাটারারর্স এসোসিয়েশন বিবিসিএ‘র ২০১৮-২০২০ সালের পূর্ণাঙ্গ কমিটির নাম ঘোষনা করা হয়। অধ্যাপক শাহগীর বখত ফারুকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিক ভাবে নতুন কমিটির নাম ঘোষনা করেন। বৃটেনে বাঙ্গালীর ঐতিহ্যের স্মারক বিবিসিএ‘র নবনির্বাচিত কর্মকর্তারা হলেন রয়েল বারা অব উইন্ডসর কাউন্সিলের প্রথম এবং একমাত্র বাঙ্গালী কাউন্সিলার শামসুল ইসলাম সেলিম, সেক্রেটারী জেনারেল সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা ও হ্যারো কাউন্সিলের সাবেক কাউন্সিলার সেলিম চৌধুরী, চীপ ট্রেজারার তরুন ক্যাটারারর্স নেতা মিঃ তফজ্জুল মিয়া, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বনামখ্যাত ব্যাবসায়ী মোঃ আব্দুল কদ্দুস, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিঃ আসিফ ঈকবাল, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সমাজসেবী তারাউল ইসলাম, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিঃ আনোয়ার আলী, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মানবাধিকার নেতা মোঃ সহিদুর রহমান, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট উইল্টশায়ার কাউন্টি কাউন্সিলের প্রথম এবং একমাত্র বাঙ্গালী কাউন্সিলার আতিকুল হক, ভাইস প্রেসিডেন্ট মুহিবুল হক চৌধুরী, ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ রুহুল হোসেন, ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ ফখরুল আলম পাভেল, জয়েন্ট সেক্রেটারী মিঃ এনামুল করীম খান সেলিম, জয়েন্ট সেক্রেটারী মিঃ মোঃ কদরুল ইসলাম, জয়েন্ট ট্রেজারার মোঃ ফজর আলী, অর্গেনাইজিং সেক্রেটারী রিয়াজ আলী, জয়েন্ট অর্গেনাইজিং সেক্রেটারী মিঃ রাশিদ আহমদ, মেম্বারশীপ সেক্রেটারী মিঃ মতিন মিয়া, প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারী মিঃ আতাউর রহমান, পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারী মিঃ এনামুল হক কিরন, সোসিয়্যাল এন্ড ক্যালচারাল সেক্রেটারী মিঃ মস্তাকিন মিয়া, ন্যাশনাল এক্সিকিউটিভ কমিটির সদস্যরা হলেন সংগঠনের বিদায়ী প্রেসিডেন্ট মোঃ ইয়াফর আলী, প্রবীণ ক্যাটারারর্স নেতা মিঃ আতিকুর রহমান খান, মিঃ এখলাছুর রহমান আলী, বিদায়ী কমিটির সেক্রেটারী শাহানুর খান, নূরুল হক নূর আলী, সংগঠনের ফাউন্ডার সদস্য কমিউনিটি নেতা জাহাঙ্গির খান, মিঃ আব্দুল হাই, মিঃ আব্দুল মোমাইন, মিঃ কামাল মিয়া, মিঃ মিরন মিয়া, মিঃ জামাল মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট ক্যাটারারর্স নেতা মনজুল আলী আফজল, মিঃ মোনিম, মিঃ কামাল জাহাঙ্গির মিয়া ও বিদায়ী কমিটির ট্রেজারার এলাইছ মিয়া মতিন। এখানে উল্লেখ্য যে গেল ২৮ডিসেম্বর ২০১৭ বিবিসিএ‘র ২০১৮-২০২০ সালের নির্বাহী কমিটি গঠনের লক্ষ্যে আয়োজন করা হয় নমিনেশন দাখিলের এবং নির্বাচনের দিন ঠিক করা হয় ২৮ জানুয়ারী ২০১৮।1213
নির্ধারিত তারিখে একটি মাত্র প্যানেল মনোনয়ন জমা দেয়। বিদায়ী কমিটির প্রেসিডেন্ট ইয়াফর আলীর সভাপতিত্বে ও বিদায়ী সেক্রেটারী শাহানুর খানের পরিচালায় বক্তব্য রাখেন প্রধান নির্বাচন কমিশান অধ্যাপক শাহগীর বখত ফারুক, নির্বাচন কমিশনার ব্যারিস্টার নজির আহমদ, নির্বাচন কমিশনার একাউনটেন্ট শাহাব উদ্দিন, নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট কাউন্সিলার শামসুল ইসলাম সেলিম, নবনির্বাচিত সেক্রেটারী জেনালের সাবেক কাউন্সিলার সেলিম চৌধুরী, নবনির্বাচিত চীফ ট্রেজারারর মোঃ তফজ্জুল মিয়া, কামাল জাহাঙ্গির মিয়া প্রমুখ। প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক শাহগীর বখত ফারুক বলেন প্রতিদ্বন্দি কোন প্যানেল না থাকায় যারা মনোনয়ন দাখিল করেছেন তারাই বিজয়ী, যেহেতু আজ ২৮ জানুয়ারী ২০১৮ নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত ছিল সুতরাং নির্ধারিত তারিখেই একমাত্র প্যানেল হিসেবে শামসুল ইসলাম সেলিম ও সেলিম চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন প্যানেলকে বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় আনুষ্টানিক ভাবে বিজয়ী ঘোষনা করা হলো।7
বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ইয়াফর আলী ও বিদায়ী সেক্রটারী শাহানুর খান নতুন কমিটিকে সব ধরনের সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করে বলেন আমারা শুরু করেছিলাম এগিয়ে নেবার দায়িত্ব নতুন কমিটির। নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক শাহগীর বখত ফারুক আরো বলেন শামসুল ইসলাম সেলিম এবং সেলিম চৌধুরী বৃটেনের বাঙ্গালী কমিউনিটিতে সুপরিচিত, রয়েছে তাদের অভিজ্ঞতা আমার বিশ্বাস তারা সংগঠনিটিকে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net