শিরোনাম

রংবেরঙ

গোপন ক্যামেরায় স্মৃতি ইরানি: গ্রেপ্তার ৪

Smrity Irani

ট্রায়াল রুমে গোপন ক্যামেরায় ভারতের কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী স্মৃতি ইরানির পোশাক পাল্টানোর দৃশ্য ধারণ করার ঘটনায় দেশটির পর্যটন রাজ্য উত্তর গোয়ার ফ্যাবইন্ডিয়া দোকানের চার কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। দোকানটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনে প্রকাশিত খবরে জানানো হয়, পুলিশ সুপার কার্তিক কশ্যপ জানান, আজ শনিবার ফ্যাবইন্ডিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। গ্রেপ্তার হওয়া চার কর্মীর ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

কালাঙ্গুতে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) এমএলএ মাইকেল লোবো মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী স্মৃতি ইরানির পক্ষ থেকে কালাঙ্গুত পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। ডিএসপি নেলসন আলবাকুয়েরক জানান, মামলাটি ৩৫৪ সি ধারা (গুপ্তস্থান থেকে যৌনক্রিয়া দেখা) এবং ৫০৯ ধারায় (নারীর শালীনতা নষ্ট করা) তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।
গোয়ায় অবকাশ যাপন করতে গিয়েছিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের শিক্ষামন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। জনপ্রিয় ফ্যাবইন্ডিয়ার একটি দোকানে পোশাক দেখছিলেন তিনি। ট্রায়াল রুমে পোশাক পরিবর্তন করতে গিয়ে দেখেন একটি গোপন ক্যামেরা রাখা আছে সেখানে। আর তা নিয়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। স্থানীয় বিজেপির সংসদ সদস্য মাইকেল লোবো অভিযোগ করেছেন, ওই দোকানের একটি কম্পিউটারে স্মৃতি ইরানিসহ ড্রেসিং রুমের যাবতীয় ভিডিও ফুটেজ পাওয়া গেছে। এ খবর দিয়েছে এনডিটিভি। লোবো আরও জানান, স্মৃতি ইরানি ওই ক্যামেরা দেখতে পাবার পর সঙ্গে সঙ্গেই অভিযোগ জানান। তার স্বামী ও ব্যবসায়ী জুবিন ইরানিকে অবহিত করেন। এরপর স্মৃতি ইরানি ফোন করেন লোবোকে। ফোন পেয়ে পুলিশের কাছে একটি এফআইআর (ফার্স্ট ইনফরমেশন রিপোর্ট) দাখিল করেন স্থানীয় এমএলএ লোবো। এদিকে ফ্যাবইন্ডিয়ার এমডি ইউলিয়াম বিসেল এনডিটিভিকে বলেছেন, ‘আমাদের প্রতিটি স্টোরেই নিরাপত্তা ক্যামেরা আছে। যেসব স্থানে চুরি হতে পারে সেখানে ক্যামেরা স্থাপন করা আছে।’ তিনি দাবি করেন ট্রায়াল রুমের ভেতরে কোন ক্যামেরা নেই। বিসেল আরও বলেন, আমরা ঘটনাটি তদন্ত করছি। আমাদের দলগুলো রেকর্ডিং দেখেছে। কিন্তু লোবো যা বলেছেন আমরা তা নিরূপণ করতে সক্ষম হইনি। এনডিটিভিকে লোবো বলেছেন, ‘ক্যামেরাটা এমনভাবে স্থাপন করা ছিল যে লেন্স সরাসরি ট্রায়াল রুম লক্ষ্য করে এবং সেটা সহজে দৃষ্টিগ্রাহ্য নয়। রেকর্ডিং আমরা দেখেছি যে পুরো ভিডিও ধারণ করা হয়েছে। এটা অনৈতিক। কেউ একজন এসব রেকর্ডিং দেখছে।’ দোকানের কর্মচারীদের ভাস্যমতে ক্যামেরাটি চার মাস আগে স্থাপন করা হয়েছে। আর এর ফুটেজ ম্যানেজারের কার্যালয়ের কম্পিউটারে রেকর্ড করা হয়। মি. লোবো অভিযোগ করেন ওই ভিডিও অনেক মানুষের পোশাক পরিবর্তনের দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে। আর সেদিন
ম্যানেজার ছুটিতে ছিল বলে বলা হচ্ছে। লোবো আরও জানিয়েছেন, পুলিশ দোকানের বিরুদ্ধে নারীদের মর্যাদাহানির একটি মামলা করেছে। আর ওই ট্রায়াল রুমে ক্যামেরা স্থাপনের পেছনে দায়ী কে তা খুঁজে বের করতে তদন্ত চলছে। স্মৃতি ইরানি কান্দোলিম পুলিশ স্টেশনে একটি বিবৃতি দাখিল করেছেন।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net