শিরোনাম

 খেলা

দুর্ঘটনায় আহত মাশরাফি বিন মুর্তজা

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা আজ এক সড়ক দুর্ঘটনায় দুই হাতে আঘাত পেয়েছেন।

অনুশীলনের জন্য বাসা থেকে রিকশায় করে মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে যাচ্ছিলেন তিনি।

যাবার পথে পেছন থেকে বাসের ধাক্কায় রিকশা থেকে রাস্তায় পড়ে গিয়ে দু’হাতে আঘাত পান মাশরাফি।

বড় ধরনের দুর্ঘটনা বেঁচে গেলেও ভারত সিরিজের আগে মাশরাফি হাতে আঘাত পাওয়ায় খুবই উদ্বিগ্ন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচ চান্দিকা হাথুরুসিংহে।

বৃহস্পতিবার সকালে মাশরাফির স্ত্রী তাদের ছেলেকে টিকা দেওয়ার জন্য নিয়ে গিয়েছিলেন হাসপাতালে। বাইকটাও বিগড়ে আছে কিছুটা। অগত্যা মাশরাফি অনুশীলনে আসছিলেন রিকশায় চড়ে। এর মধ্যেই ওই দুর্ঘটনা। রাস্তা ক্রস করার সময় পিছন থেকে বাস এসে ধাক্কা মারে মাশরাফির রিকশাকে। বেপরোয়া বাসটাকে আসতে দেখেছিলেন মাশরাফি, এ কারণে ব্যথাটাও তুলনামূলক কম পেয়েছেন বলে মনে করেন মাশরাফি।

রিকশা থেকে পড়ে যাওয়ার পরপরই পুলিশ এসে বাসের চালককে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু মাশরাফি করলেন কী- বাসের চালককে ছাড়িয়ে দিলেন! এমনকি একটা ধমক পর্যন্ত দেননি তাকে! পরে পুলিশই মাশরাফিকে স্টেডিয়ামে নিয়ে আসে।

ইএসপিএন ক্রিকইনফো-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মিঃ হাথুরুসিংহে জানিয়েছেন, “এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। তার হাতের চোটের বিষয়টি আমরা দেখছি। ওয়ানডে সিরিজের আগে মাশরাফি যেন সেড়ে সেই সুযোগ আমরা তাকে দেব”।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি’র মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম বিবিসিকে জানিয়েছেন, “বিসিবি’র চিকিৎসক মাশরাফিকে পরীক্ষা করেছেন। হাতের বিভিন্ন জায়গায় ছিলে গেছে, ক্ষতও আছে। তবে চিকিৎসক মনে করছেন নিয়মিত ড্রেসিং আর ট্রিটমেন্টে আগামী আট থেকে দশ দিনের মধ্যে হাতের আঘাত থেকে পুরোপুরি সেরে উঠবেন মাশরাফি মুর্তজা”।

আগামী ১৮ই জুন থেকে ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ শুরু হতে যাচ্ছে, মাশরাফি বিন মুর্তজা ওই ওয়ানডে দলের নেতৃত্ব দেবার কথা রয়েছে।

বাংলাদেশ খুব ভয়ঙ্কর দল : সৌরভ

বাংলাদেশ সফরে পূর্ণশক্তির দল ঘোষণা করেও স্বস্তিতে নেই সাবেকরা। বাংলাদেশ এই মুহূর্তে খুব ভয়ঙ্কর দল। নিজেদের মাটিতে স্বদেশের সমর্থকদের সামনে আরও তেতে উঠবে।

ভারতীয় দল ঘোষণার পর সন্ধ্যায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল সম্পর্কে এ মন্তব্য করেছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি। বাংলাদেশ সফরে বিরাট কোহলির কাঁধেই থাকছে টেস্ট দলের নেতৃত্ব। আর ওয়ানডে দলকে নেতৃত্ব দেবেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। বাংলাদেশ সফরের জন্য কোহলি-ধোনিসহ অন্যান্য সিনিয়র ক্রিকেটাররা বিশ্রাম চাইলেও তা ধোপে টেকেনি সন্দ্বীপ পাতিলের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক কমিটির কাছে।

এমনকি বাংলাদেশ সফরে কোহলি কেবল টেস্ট খেলবেন— এমন কানাঘুষা থাকলেও তাকে রাখা হয়েছে দুই ফরম্যাটের দলেই। বাংলাদেশ সফর বিষয়ে ভারতের ক্রিকেটারদের সতর্ক করে সৌরভ বলেছেন, ‘বাংলাদেশ এই মূহূর্তে সেরা দল। পাকিস্তানকে ওয়ানডে ও টোয়েন্টি২০-এ হারিয়েছে।’ প্রায় দুই বছরেরও বেশি সময় জাতীয় দলের বাইরে ছিলেন ভারতের অন্যতম সেরা অফস্পিনার হরভজন সিং৷ দেশের হয়ে ভাজ্জি শেষ টেস্ট খেলেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২০১৩ সালের মার্চে৷ ১০১ ম্যাচে মোট ৪১৩টি উইকেট রয়েছে হরভজনের ঝুলিতে৷ কিন্তু সম্প্রতি বিশ্বকাপ এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে বাংলাদেশের যা পারফরম্যান্স, তাতে তাদের বিন্দুমাত্র হেলাফেলার চোখে দেখা সম্ভব নয়৷ তাই টেস্টের জন্য অন্তত অভিজ্ঞ দলই পাঠাতে চেয়েছেন নির্বাচকরা৷

পাক-জিম্বাবুয়ে সিরিজে আম্পায়ার পাঠাবে না আইসিসি

নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্যা কাটিয়ে জিম্বাবুয়ে শেষ পর্যন্ত পাক সফরে আসার সবুজ সংকেত দিয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানের নিরাপত্তা নিয়ে একেবারেই নিশ্চিত হতে পারছে না ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা।

ফলে পাক-জিম্বাবুয়ে সিরিজে কোনও ম্যাচ অফিসিয়ালদের পাঠাচ্ছে না আইসিসি। নিরাপত্তা সংক্রান্ত ব্যাপারে রিপোর্ট পাওয়ার পরেই আইসিসি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রবিবার আইসিসির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এমনটাই জানানো হয়েছে।

আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারিদের না পাঠালেও ম্যাচটিকে আইসিসি ‘অফিসিয়াল ক্রিকেট’ বলেই অনুমোদন দিয়েছে। আইসিসি ম্যাচ অফিসিয়ালদের পাঠাচ্ছে না বলেই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে ম্যাচ অফিসিয়ালদের আয়োজন করা হচ্ছে।
আজহার আলীদের বিরুদ্ধে তিনটি ওয়ানডে ও দু’টি টি-টোয়েন্টি খেলবে জিম্বাবুয়ে। প্রথম ম্যাচ ২২ মে। মঙ্গলবারই জিম্বাবুয়ে দল পাকিস্তানে পৌঁছাচ্ছে। এখন দেখার প্রায় ৬ বছর পর পাকিস্তানের মাটিতে অনুষ্ঠিত হওয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আসরে কারা জয় পায়।।

 

অশ্রুই সঙ্গী হল রিয়ালের

ঘরের মাঠে জোড়া গোল করে বার্সেলোনাকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালের টিকিট উপহার দেন লিওনেল মেসি ৷রিয়াল ভক্তদের ধারণা ছিল বার্নাব্যুতে সেই ভূমিকাতেই দেখা যাবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে। পেনাল্টি থেকে গোল করে রিয়াল মাদ্রিদকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ঠিকই ৷ তবে শেষ তুলির টান দিতে পারলেন না সিআর সেভেন ৷

বুধবারের রাতে নায়কের ভূমিকাতে দেখা গেল না পর্তুগালের মহাতারকাকে ৷ একদিন আগেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে ছিটকে গেলেও. ঘরের মাঠে বার্সাকে হারিয়ে বদলা নিয়েছিলেন টমাস মুলাররা ৷ এখানেও ব্যর্থ কার্লো আনচেলত্তির দল। ঘরের মাঠে এগিয়ে গিয়েও জুভেনটাসের বিপক্ষে লিড ধরে রাখতে পারলেন না ৷ বুধবার ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হল ৷ প্রথম লেগে ২-১ গোলে জেতার ফলে (৩-২) চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠে জুভেন্টাস।

জুভেন্টাস তাদের ‘গেমপ্লান ফুটবল’ বা সুসংগঠিত ফুটবল উপহার দিলেও এদিন অবশ্য তাদের ভাগ্যও সঙ্গ দিয়েছে ৷ কখনও মার্সেলো, কখনও গ্যারেথ বেল , কখনও জেমস রডরিগেজ আবার কখনও রোনালদোল্ডো বারবার আক্রমণ ক রেছেন ৷ কিন্তু কখনও বুফোন আটকেছেন, আবার কখনও বাইরে মেরেছেন বেলরা ৷আক্রমণগুলোকে ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারলে এদিন ফলাফল রিয়ালের পক্ষেই অাসত। কিন্তু ফুটবল দেবতা এদিন জুভেন্টাসের পক্ষেই ছিল ৷ তাই শেষ হাসি হাসল ইতালির দলটি ৷

ঘরের মাঠে প্রথম লেগে ২-১ গোলে জিতেছিল জুভেন্টাস৷ তাই কিছুটা বাড়তি সুবিধা ছিল অ্যান্দ্রে পিরলো-তেভেজদের ৷ অন্যদিকে ঘরের মাঠে বদলা নেওয়ার সুযোগ ছিল রিয়ালের ৷ ফাইনালে যেতে গেলে এই ম্যাচে নুন্যতম এক গোলে জিততেই হত ৷ তাই শুরু থেকেই ঝাঁপিয়ে পড়েন রোনাল্ডো-বেলরা ৷চোট সারিয়ে মাঠে ফিরেই স্বমহিমায় করিম বেনজিমা ৷ পাঁচ মিনিটেই গোলের সুযোগ নষ্ট করেন তিনি ৷ এরপর রোনাল্ডোর ফ্রি-কিকও বাইরে গেল ৷২০ মিনিটে বেলের দুরন্ত শট আটকান জুভেন্তাস গোলরক্ষক ৷তবে গোল পেতে অবশ্য বেশি সময় লাগেনি রিয়ালের ৷ জেমস রডরিগেজকে ফাউল করার জন্য পেনাল্টি দেন রেফারি ৷ ২৩ মিনিটে রোনাল্ডোর পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায় রিয়াল ৷এই গোলের পরেও রিয়াল দুরন্ত ফুটবল খেলেছে ৷

প্রথমার্ধে শেষ পর্বে বেনজিমা গোলের সুযোগ তৈরি করে ৷ বিরতির সময় অবশ্য এক গোলেই এগিয়ে ছিল লা লিগার বিখ্যাত ক্লাবটি ৷ কিন্তু বিরতির পরে পাল্টা ধাক্কা দিতে শুরু করে জুভেন্টাস৷ ৫৭ মিনিটে জুভেন্টাসের গোল শোধ করে ৷গোল করেন মোরাতা ৷ এরপর গোলের ব্যবধান বাড়ানোর জন্য মরিয়া হয়ে উঠে রিয়াল ৷ রডরিগেজ ও বেলের দুটো ভালো প্রচেষ্টা হলেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি রিয়াল ৷ বরং পরে গোল করার সুযোগ পেয়েছিল জুভেন্টাসও ৷ যদিও তারা গোল করতে পারেনি ৷ শেষ পর্যন্ত ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র করেই মাঠে ছাড়েন বেল-রোনালদোরা ৷

আইপিএলের ফাইনালে ডিজে গান নিষিদ্ধ

আইপিএলে খেলার ফাঁকে ফাঁকে গান বাজছে এটা নিত্ত নৈমত্তিক ব্যাপার। কিন্তু হঠাৎই আইপিএল ফাইনাল আসার আগে হোঁচট খেল সিএবি। তাও আবার আদালতের কাছে। বুধবার কলকাতা হাইকোর্ট স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, ফাইনালের দিন রাত দশটার পর ইডেনে মাইক বাজানো এবং ম্যাচ শেষে বাজি ফাটিয়ে জয়োৎসব করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

আর বাজানো হলেও সেই শব্দের মাত্র যেন ৯০ ডেসিবেলের বেশি অতিক্রম না করে। এ ব্যাপারে সিএবি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেও এদিন তাদের নিরাশ হয়েই ফিরতে হল। আইপিএলের আট বছরের ইতিহাসে এর আগে মাত্র একবার ই ইডেন ফাইনাল আয়োজনের দায়িত্ব পেয়েছিল। সেবছরেও বেশি রাতে লাউডস্পিকার বাজানো বা বাজি ফাটানোর ক্ষেত্রে প্রথমে নিষেধাজ্ঞা জারি করেও পরে অনুমতি দেয় হাইকোর্ট।

কিন্তু এবার সেটা হল না। দ্বিতীয়বারের জন্য আইপিএল ফাইনালে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে কলকাতায়। আগামী ক’দিনে ব্যাপক কোনও রদবদল না হলে আইপিএল ফাইনালের রাতে ‘ডিজে’-র গান কিংবা বাজির প্রদর্শনী দেখার থেকে এবছর বঞ্চিতই থাকতে হবে ইডেনের দর্শকদের।

আর কোন অঘটন না ঘটলে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলা নিশ্চিত বাংলাদেশের

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ খেলা হবে ইংল্যান্ড এবং ওয়ালেসে। স্বাগতিক হিসেবে খেলবে ইংল্যান্ড আর বাকি সাতটা দল নির্বাচিত হবে এক দিনের ক্রিকেট এর পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থাকা দল।

বাংলাদেশ ৮৮ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি তাদের অবস্থান অষ্টমে। পাকিস্তানকে ৩-০ সিরিজ হারানোর পর পাকিস্তানের অবস্থান এখন বাংলাদেশের পর। আর ক্যারিবীয়দের অবস্থান সাতে।

যে কারণে বাংলাদশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর পাকিস্তানের মধ্যে অনেক সমীকরণ রয়ে গেছে। কোন কোন দল খেলবে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭, এইটা নির্ধারণ করার শেষ সময় ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫। অর্থাৎ বাংলাদেশ যদি ঐ নির্ধারিত সময় পর্যন্ত শীর্ষ আটে থাকে তাইলেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ খেলা নিশ্চিত।

তিন দেশের ঐ নির্ধারিত সময় এর আগের খেলার ফিক্সচার দেখে নেই।

ওয়েস্ট-ইন্ডিজ: কোনো খেলা নাই।

বাংলাদেশ: ভারতের বিপক্ষে জুনে আর জুলাইয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিনটি এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ স্বাগতিক হিসাবে খেলবে বাংলাদেশ।

পাকিস্তান: চলতি মাসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিনটি ম্যাচ স্বাগতিক হিসাবে এবং শ্রীলঙ্কার মাটিতে গিয়ে পাঁচটি এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে পাকিস্থান।

বাংলাদেশ যদি তাদের এই দুই সিরিজ এর যেকোনো একটি ম্যাচ জিততে পারে তাহলে তারা নিশ্চিত চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ২০১৭ খেলতে পারবে। যদি জিততে নাও পারে তারপরও তাদের সুযোগ আছে, তখন তাদের তাকিয়ে থাকতে হবে পাকিস্তানের দিকে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি ম্যাচও যদি পাকিস্তান হারে তাহলেও বাংলাদেশ এই আসরে অংশগ্রহণ করতে পারবে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকে মিনি বিশ্বকাপও বলা হয়ে থাকে ।

পাকিস্তানের জন্য হিসাবটা অনেক শক্ত। তাদের মিনি বিশ্বকাপে অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সব ম্যাচই জিততে হবে এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জিততে হবে কমপক্ষে ৪-১ ব্যবধানে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটা ম্যাচ হারলেও তারা ছিটকে পড়বে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার লড়াইয়ে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ এর আগে কোনো খেলা নাই। তাই তাদের বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানের সিরিজের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া করনীয় কিছুই নেই।

কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনাকে নেতৃত্ব দিবেন মেসি

আসন্ন কোপা আমেরিকা কাপকে সামনে রেখে ৩০ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করেছে আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশন। বার্সা তারকা লিওনেল মেসির কাঁধে দলের দায়িত্ব দিয়েই সোমবার রাতে এ দল ঘোষণা করেন। প্রাথমিক দল থেকে ১ জুন ২৩ সদস্যের দল পাবে কোচ জেরার্ডো মার্টিনো।

আবারো দলের নেতৃত্বের ভার পড়েছেন বার্সেলোনা সুপারস্টার লিওনেল মেসির কাঁধে। তারকাসমৃদ্ধ দলে আরও রয়েছেন ম্যানচেস্টার সিটি স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরো, জুভেন্টাসের কার্লোস তেভেজ, নাপোলির গঞ্জালো হিগুয়েইন, পিএসজির এজেকুয়েল লাভেজ্জি এবং বেনফিকার নিকোলাস গেইটিন।

১১ জুন ২০১৫ থেকে চিলিতে শুরু হতে যাওয়া কোপা আমেরিকায় গ্রুপ বি’তে রয়েছে আর্জেন্টিনা। তার আগেই ৫ জুন চিলির সীমান্তবর্তী সান জুয়ানে বলিভিয়ার বিপক্ষে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে আলবেসিলেস্তেরা। তারপর চিলির উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন মেসি-মারিয়ারা। গ্রুপ বি’তে মেসিদের ৩ প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে, প্যারাগুয়ে ও জ্যামাইকা।

১৩ জুন লা সেরেনায় প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে আলবেসিলেস্তেদের শিরোপা অভিযান।এর ৩ দিন পর অর্থাৎ ১৬ জুন একই মাঠে উরুগুয়ের মুখোমুখি হবে জেরার্ডো মার্টিনোর আর্জেন্টিনা। ২০ জুন ভিনা ডেল মারে জ্যামাইকার বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটি খেলবে মেসির নেতৃত্বাধীন দলটি।

প্রসঙ্গত, কোপা আমেরিকার অন্যতম সফল দল আর্জেন্টিনা। ১৯১৬ সাল থেকে শুরু হওয়া এই ঐতিহ্যবাহী ও স্মৃতিবিজড়িত টুর্নামেন্টে ২য় সর্বোচ্চ ১৪ বার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে লা মেসিয়াহ্র দেশ। এছাড়া ১২ বার রানার্স আপ হয়েছে তারা।তবে দীর্ঘ ২২ বছর ধরে ল্যাটিন আমেরিকার শীর্ষ এ শিরোপা ছুতেঁ পারেনি আর্জেন্টিনা। উরুগুয়ে রেকর্ড ১৫ বার শিরোপা জয় করে। ব্রাজিল চ্যাম্পিয়ন হয় ৮ বার।

আর্জেন্টিনার প্রাথমিক স্কোয়াড :

গোলরক্ষক : সার্জিও রোমেরো, নাওয়েল গাজম্যান, মারিয়ানো আনডুজার, অগাস্টিন মারচেসিস।

ডিফেন্ডার : পাবলো জাবালেটা, ফাকুনডো রোনকাগলিয়া, এজেকুয়েল গ্যারি, মার্টিন ডেমিচেলিস, নিকোলাস ওটামেন্ডি, ফেডেরিকো ফার্নান্দেজ, মার্কোস রোহো, মিল্টন কাসকো, লুকাস ওরবান।

মিডফিল্ডার : জেভিয়ার মাসচেরানো, লুকাস বিগলিয়া, ইভার বানায়েগা, রবার্টো পেরেইরা, ফার্নান্দো গাগো, এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, ফেডেরিকো মানকুয়েলো, ম্যাক্সি রড্রিগুয়েজ, এনজো পেরেজ, এরিক লামেলা, জেভিয়ার পাস্তোর।

ফরোয়ার্ড : লিয়নেল মেসি, নিকোলাস গেইটিন, সার্জিও আগুয়েরো, কার্লোস তেভেজ, এজেকুয়ের লাভেজ্জি, গঞ্জালো হিগুয়েইন।

বাংলাদেশ সফরের ব্যর্থতা নিয়ে পাকিস্তানে চলছে ব্লেম গেম!

বাংলাদেশ সফরের ব্যর্থতা নিয়ে এখনো নানান সমালোচনার মুখে জর্জরিত পাকিস্তান ক্রিকেটের শীর্ষ কর্তারা। একে অপরের দোষারোপ ছাড়া মূল সমস্যা খুঁজেই পাচ্ছেন না কর্মকর্তারা। তবে এ সফরের ব্যর্থতা ভুলে এখন তারা চাইছে দীর্ঘ ছয় বছর পর আন্তর্জাতিক নির্বাসনের অবসান ঘটিয়ে নিজ দেশে টেস্ট খেলুড়ে প্রথম দল হিসেবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আয়োজিত সিরিজে উজ্জীবিত থাকতে।
বাংলাদেশ সফরকালে স্বাগতিকদের কাছে ওডিআই সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে হেরে হোয়াইট ওয়াশ হবার পর পাকিস্তান আইসিসির ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ের নবম অবস্থানে নেমে এসেছে। ২০০২ সালের পর প্রথম র‌্যাংকিংয়ের এমন নীচের অবস্থানে অবনমন ঘটছে দলটির। যেটি ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাদের অংশগ্রহণ হুমকিরর মুখে ফেলে দিয়েছে। র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থানে থাকা ৮টি দল ওই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়ে থাকে।
শুধু ওয়ানডে নয়, সফরকারী পাকিস্তান বাংলাদেশের কাছে এক মাত্র টি২০ ম্যাচেও পরাজিত হয়েছে। যদিও শেষ পর্যন্ত দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের শেষ ম্যাচে জয়ের কারণে তারা ১-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ে সক্ষম হয়।
পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিয়ে ১৯৯২ সালে বিশ্বকাপ শিরোপা পাইয়ে দেয়া কিংবদন্তী ক্রিকেটার ইমরান খান মনে করেন বাংলাদেশের কাছে ওয়ানডে সিরিজে হারটি ‘অকল্পনীয়’ ঘটনা। আর রমিজ রাজা এটিকে ‘পাকিস্তানের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ পারফর্মেন্স’ হিসেবে অভিহিত করেছেন।
দেশটির বিপুলসংখ্যক সাবেক খেলোয়াড় ও অধিনায়ক এই ব্যর্থতার জন্য দায়ী করেছেন পাকিস্তান ক্রিকেটের বর্তমান পরিচালনা পরিষদকে।
এদিকে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে এই ব্যর্থতার কারন ‘গুরুত্ব সহকারে’ খতিয়ে দেখার। এজন্য প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট পদ্ধতিকে ত্রুটিমুক্ত করারও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। তার মতে দলটির বর্তমান খেলোয়াড়দের ফিটনেস বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বনি¤œ অবস্থানে নেমে এসেছে।
বাংলাদেশ সফরের সময় খেলোয়াড়দের ইনজুরির মিছিলই প্রমাণ করে তাদের ফিটনেসের ঘাটতির বিষয়টি। আর ম্যাচে খেলোয়াড়দের ভুলের বিষয়গুলো প্রস্তুতিতে ঘাটতির বিষয়টিকে সামনে নিয়ে এসেছে।
এখন জিম্বাবুয়ের সঙ্গে মিনি সিরিজের প্রস্তুতির সময় বাংলাদেশ সফরের ব্যর্থতাগুলো বার বার সামনে চলে আসছে। সিরিজে দুইটি টি২০ ও তিনটি ওডিআই ম্যাচ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেখানে আফ্রিকান দেশটির কাছে হোম সিরিজে অঘটনের শিকার হয় কিনা সে বিষয়টি নিয়েও সবাই বেশ চিন্তিত।
২০০৯ সালে লাহোরে সফরকারী শ্রীলংকান ক্রিকেট দলের ওপর সশস্ত্র হামলার পর টেস্ট খেলুড়ে কোন দলই আর পাকিস্তান সফরে যায়নি। ওই ঘটনায় ৮ ব্যক্তি নিহত এবং সফরকারী দলের কয়েকজন খেলোয়াড় আহত হন।
প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ত্রুটি :
বিশ্বকাপ মিশন শেষ করার পর এক দিনের ক্রিকেট থেকে অবসর নেয়া পাকিস্তান দলের টেস্ট অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক দলের এই সংকট থেকে উত্তরনের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হবার আহ্বান জানিয়েছেন। এদিকে এক দশক ধরেই জাতীয় দলকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটকে ত্রুটিমুক্ত করার কথা বলে আসছেন ইমরান খান। তবে বিশ্লেষকরা এর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বলছেন যে অতীতে এই পদ্ধতিতেই খেলোয়াড় সৃষ্টি হয়েছে। যাদের মধ্যে আছেন জাভেদ মিঁয়াদাদ, ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনুস ও ইনজামাম উল হকের মত তারকারা।
তবে এর সঙ্গে একমত হতে পারেননি সাবেক টেস্ট অধিনায়ক ইনজামাম। বার্তা সংস্থা এএফপিকে তিনি বলেন, ‘সময়ের বিবর্তনে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটের এই পদ্ধতিটি বর্তমানে খুব একটা ভাল করতে পারছেনা। ‘এ’ দলের সফরগুলো আমাদের দারুণভাবে আহত করছে। কারণ এটি এমন একটি মঞ্চ, যেখানে খেলোয়াড়রা পরিপক্ক হবার সুযোগ পায়।’
অবশ্য লাহোর হামলার পর পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আয়োজন না হওয়াটাও পাকিস্তান দলের এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী।
পিসিবি কর্মকর্তারা বলেন, নিরাপত্তার কারণে প্রতিপক্ষ দেশগুলো তাদের ‘এ’ দলকে পর্যন্ত পাকিস্তান পাঠাতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে। পাকিস্তান সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হোম গ্রাউন্ড ঘোষণা করে কিছু কিছু ট্যুরের আয়োজন করলেও কোন ‘এ’ দল বিগত ৫ বছর ধরে দেশের বাইরে গিয়ে খেলার সুযোগ পাচ্ছেনা।
প্রচুর সফর সূচির প্রয়োজন :
ফাস্ট বোলার ওয়াহাব রিয়াজ ও ব্যাটসম্যান উমর আকমল সিনিয়র পর্যায়ে উন্নীত হবার সুযোগ পেয়েছে ২০০৯ সালে পাকিস্তান ‘এ’ দলের হয়ে অস্ট্রেলিয়া সফরের মাধ্যমে। ইনজামামের মতে সফর ছাড়া টেস্ট ও ওডিআই খেলার উপযুক্ত খেলোয়াড় গড়ে তোলা সম্ভব হয়না। তিনি বলেন, ‘আমাদের উচিৎ ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকায় বেশী করে খেলোয়াড় পাঠানো। আমরা যদি সেটি করতে না পারি তাহলে শীর্ষ পর্যায়ের উপযোগি খেলোয়াড় সৃষ্টি করা সম্ভব হবে না।’
এদিকে কিছু কিছু সমালোচক কোচিং স্টাফ পরিবর্তনের দাবী জানিয়েছে। প্রধান কোচ ওয়াকার ইউনুস গত বছর জুনে পাকিস্তানের দায়িত্ব নেয়ার পর দলটি ৫টি ওডিআই সিরিজে পরাজিত হয়েছে। সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফ বলেন, ‘একদিনের সিরিজে এমন বাজে পারফর্মেন্সের পর আমার মনে হয় ওয়াকার ইউনুসের পদত্যাগ করা উচিৎ। বাংলাদেশের ক্রিকেট অনেক উন্নতি করেছে ঠিকই। তারপরও তাদের কাছে এভাবে পরাজয় সহ্য করার সময় এখনো আসেনি। এ জন্য ম্যানেজমেন্ট দায়ী।’
আগামী ২২ থেকে ৩১ মে পাকিস্তান সফর করবে জিম্বাবুয়ে। এসময় দল দুটির মধ্যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

 

 

-বাসস

বার্সেলোনা বিশ্বের সেরা ফুটবল ক্লাব : রুমেনিগে

মঙ্গলবার বার্সেলোনার কাছে সেমিফাইনালে দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৩ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে চ্যাম্পিয়নস লীগ থেকে বিদায় নিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। আলিয়ঁজ এরিনাতে যদিও দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটিতে স্বাগতিকরা ৩-২ গোলের জয় তুলে নেয়। কিন্তু এক সপ্তাহ আগে ক্যাম্প ন্যুতে প্রথম লেগে ৩-০ গোলে পরাজিত হওয়ায় দুই লেগ মিলিয়ে বাদ পড়েছে জার্মান জায়ান্টরা। আর স্টেডিয়ামে বসে ম্যাচটি উপভোগ করার পরে বায়ার্ন মিউনিখের প্রধান নির্বাহী কাল-হেইঞ্জ রুমেনিগে অকপটেই স্বীকার করেছেন বার্সেলোনাই বিশ্বের সেরা দল।
যদিও পশ্চিম জার্মানীর এই কিংবদন্তী নিজের দলের কৃতিত্বকে প্রশংসাই করেছেন। কিন্তু একইসাথে বলেছেন দুই লেগেই বার্সেলোনা তাদের থেকে ভাল খেলেছে। ক্লাবের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে রুমেনিগে বলেছেন, ‘আমি মনে করি একটি দল হিসেবে আমরা দারুন করেছি। খেলোয়াড়রা দারুন লড়াই করে তিন গোল দিয়েছে। কিন্তু একইসাথে দূর্ভাগ্যবশত: দুই গোলও হজম করেছে। পুরো ১৮০ মিনিটের পারফরমেন্সে বার্সেলোনর জয়টা প্রাপ্য ছিল। কিন্তু আমরা মাথা উঁচু করেই মাঠ ছেড়েছি। বার্লিনে আরেকবার আমরা যেতে পারলাম না। কিন্ত সম্ভবত বিশ্বের সেরা দলের কাছেই আমরা পরাজিত হয়ে বিদায় নিচ্ছি। এরপরেও আমি বলবো টানা চতুর্থবারের মত সেমিফাইনালে খেলার কৃতিত্বও অনেক বড় কিছু।’

 

 

 

-বাসস
Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net