শিরোনাম

Monthly Archives: অক্টোবর ২০১৪

সরকার–জামায়াত আঁতাত রয়েছে: ইমরান এইচ সরকার

অজন্তা দেব রায়, ৩১ অক্টোবর ২০১৪:  গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, সরকার ও জামায়াতের মধ্যে আঁতাত রয়েছে। এ নিয়ে সাধারণ মানুষ আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। মানুষের মাঝেরে সেই আতঙ্ক দূর করতে সব মানবতাবিরোধী অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনে যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমার বিধান বাতিল করতে হবে। আজ শুক্রবার দুপুরে মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এক পথসভায় ইমরান এইচ সরকার এসব কথা বলেন। দেশব্যাপী জাগরণ যাত্রার অংশ হিসেবে রাজশাহীর জনসভায় যাওয়ার পথে মানিকগঞ্জে এই পথসভার আয়োজন করে মানিকগঞ্জ গণজাগরণ মঞ্চ। এ সময় লাকী আক্তার, মানিকগঞ্জ গণজাগরণ মঞ্চের আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমান, মঞ্চের কর্মী মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হোসেন, কামাল হোসেন ও বিমল রায় প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ইমরান এইচ সরকার বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে সরকারের মন্ত্রীরা বলেছিলেন, ক্ষমতায় গেলে সব যুদ্ধাপরাধীর বিচার করা হবে এবং জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হবে। কিন্তু নিষিদ্ধ নয় বরং জামায়াত-শিবিরকে পুনর্বাসনের যড়যন্ত্র চলছে। ইমরান এইচ সরকার আরও বলেন, জামায়াত-শিবির বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে হত্যা থেকে শুরু করে সব ধরনের সহিংসতামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। এখনো হরতালের নামে সহিংসতা চালানোর যড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

হবিগঞ্জের বাংলাদেশ সীমান্তে তিন বাংলাদেশিকে হত্যা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি, ২৮ অক্টোবর ২০১৪:  হবেগঞ্জের বাল্লা সীমান্তে কাছে ভারতের লতাবাড়ি নামক এলাকায় আজ মঙ্গলবার বিকেলে তিন বাংলাদেশিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

তাঁরা হলেন সুজন (২৩), আকল মিয়া (২৪) ও চুনু মিয়া (২৭)। তাঁদের সবার বাড়ি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আলীনগর গ্রামে।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের অধিনায়ক কর্নেল তারিকুল ইসলাম খান আজ রাত নয়টার দিকে প্রথম আলোকে জানান, তাঁরা স্থানীয় লোকজনের কাছে তিনজন নিহত হওয়া খবর পেয়েছেন। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এ বিষয়ে কিছুই জানায়নি। তবে এ বিষয়ে বিএসএফকে একটি বার্তা পাঠিয়েছেন বলে জানান তিনি।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আলীনগর গ্রামের পাঁচ-ছয়জন লোক আজ বিকেলে বাংলাদেশের বাল্লা সীমান্ত দিয়ে ভারতের সিংহাইছড়ার লতাবাড়ি (বাল্লা বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে চার কিলোমিটার ভেতরে) এলাকায় প্রবেশ করেন। এ সময় ভারতীয় লোকজন তাঁদের গরুচোর সন্দেহে পিটিয়ে আহত করেন। তাঁদের মধ্যে সুজন ও চুনু ঘটনাস্থলে এবং আকল মিয়া সেখানকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় মারা যান। দু-তিনজন পালিয়ে আসেন। পালিয়ে আসা তিনজন নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে বিষয়টি অবহিত করেন।
চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় নিশ্চিত করে জানান, সীমান্ত এলাকার লোকজন নানা ব্যবসায়িক কাজে ভারত সীমান্তে যান। তাই বলে এভাবে হত্যাকাণ্ড মেনে নেওয়া যায় না।
উল্লেখ্য, গত এপ্রিল মাসে একই সীমান্তে আরও তিন বাংলাদেশিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ নিয়ে চলতি বছরে ছয়জনকে হত্যা করা হলো।

শাহজালালের ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

সিলেট প্রতিনিধি, ২১ অক্টোবর, ২০১৪ :  শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ তথ্য জানানো হয়। বহিষ্কৃতরা সবাই বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মী বলে জানা গেছে।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা হলেন পরিসংখ্যান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের মো. মেহেদী হাসান, খাদ্য প্রকৌশল ও চা প্রযুক্তি বিভাগের (এফইটি) একই সেমিস্টারের মো. আরিফুল হক ওরফে সনি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের মো. নজরুল ইসলাম ও একই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের মো. খলিলুর রহমান। সাময়িক বহিষ্কৃত ওই চারজনকে বহিষ্কারকাল পর্যন্ত ক্যাম্পাসে অবস্থান না করার জন্য বলা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় ফুড কোর্ট এলাকায় সহকারী প্রক্টর মিরাজুল ইসলামের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের কারণে এবং প্রক্টরিয়াল বডির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
নাম না প্রকাশের শর্তে প্রশাসনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, এই শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ছিনতাই, চাঁদাবাজি, ভাঙচুরসহ শৃঙ্খলাবিরোধী বেশ কিছু অভিযোগ ছিল। তাই তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে প্রক্টরিয়াল বডি।

ছাত্রলীগ ও প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বহিষ্কৃত চার শিক্ষার্থী ছাত্রলীগের কর্মী। তাঁদের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে ক্যাম্পাসে শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার আরও অভিযোগ রয়েছে।
মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন ওই চার শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কারের বিষয়টি প্রথম আলোকে জানান।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সহকারী প্রক্টর মিজারুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘গত শনিবার বিকেলে চারজনকে মারামারি করতে দেখে আমি তাদের নিবৃত্ত করতে গিয়েছিলাম। তখন তারা আমার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে।’

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে জাতি ক্ষুব্ধ: বিএনপি

প্রথম আলো থেকে সংকলিত: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যে জাতি হতাশ এবং ক্ষুব্ধ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে বিএনপি।

বিএনপি বলেছে, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রী অনেক ‘মিথ্যাচার’ করেছেন এবং লতিফ সিদ্দিকীর বিষয়টি চতুরতার সঙ্গে এড়িয়ে গেছেন। লতিফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া বিষয়ে সুস্পষ্ট কার্যকর কোনো ইঙ্গিত খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশগ্রহণ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া বক্তব্যর প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি এসব অভিযোগ করে। গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এ উপলক্ষে আজ শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেখানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।
বিএনপির সঙ্গে সংলাপ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘খুনিদের সঙ্গে কিসের সংলাপ?’ প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘শেখ হাসিনা যত কথাই বলতে থাকুক না কেন, বিএনপির সঙ্গে সলাপ ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। আর সংলাপ করতে না চাইলে অতীতে যেভাবে মূল্য দিতে হয়েছে, অতীতে যেভাবে জাতিকে জিম্মি করছে, আবারও সংঘাত সৃষ্টি হবে, তবে সেটা আমরা চাই না।’

সেই কোহলিকেই টেস্ট–নেতৃত্বে চান আজহার

aqসংবাদ ডেস্ক:  সিং ধোনিকে টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে যেন সহ্যই করতে পারছেন না মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন। ভারতের সাবেক এই অধিনায়ক মনে করেন, টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের সাম্প্রতিক ব্যর্থতায় দলের অধিনায়কত্বে পরিবর্তন আসাটা জরুরি হয়ে পড়েছে। আজহারউদ্দিন এ ক্ষেত্রে ধোনির উত্তরসূরিও বাতলে দিয়েছেন। তাঁর মতে, বিরাট কোহলিই যোগ্যতায় সবচেয়ে এগিয়ে।
ধোনির ব্যাপারে আজহারের রয়েছে এন্তার অভিযোগ, ‘দেখুন, কোনো অধিনায়কেরই উচিত নয় পারফরম্যান্স না দেখিয়ে টিকে থাকা । পারফরম্যান্স না থাকলে একটা সময় ব্যর্থ অধিনায়ক নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবেই। টেস্টে ধোনির যে পারফরম্যান্স তাতে বিসিসিআইয়ের উচিত খুব তাড়াতাড়ি একটা সিদ্ধান্তে আসা। হয় এসপার না হয় ওসপার। মাঝামাঝি ঝুলে থাকার কোনো মানেই হয় না। নতুন একটা অধিনায়ককে দায়িত্ব দিয়ে দেখা যেতেই পারে। পারফরম্যান্স তো ভালো হতেও পারে।’
নতুন অধিনায়ক হিসেবে কোহলিকে দারুণ পছন্দ আজহারের, ‘কোহলিকে সুযোগ দেওয়া যেতে পারে। সে এই মুহূর্তে ভারতের সেরা খেলোয়াড়। ইংল্যান্ডেও ভালো করেছে। সত্যি কথা বলতে কি, অধিনায়কত্বের ব্যাপারে দায়িত্ব না দেওয়া পর্যন্ত আপনি কোনো কিছুই ধারণা করতে পারবেন না। তবে কোহলি অধিনায়ক হিসেবে ভালো করবে বলেই বিশ্বাস।’
কোহলি এ মুহূর্তে ভারতের সবচেয়ে ভালো ব্যাটসম্যান—এ নিয়ে আজহারের সঙ্গে দ্বিমত করার সুযোগ নেই। কিন্তু ইংল্যান্ডে কোহলি ভালো খেলেছেন! শুধু ইংল্যান্ড সফরে কেন, টেস্টের সর্বশেষ ১০ ইনিংসেই কোনো ফিফটি নেই কোহলির। শুধু তা-ই নয়, ওয়ানডেতে দারুণ সফল কোহলি টেস্টের কঠিন পরীক্ষায় ঠিক সেই মাপের ব্যাটসম্যান নন বলেই মনে করেন অনেকে। অথচ সেই কোহলিকেই টেস্টে অধিনায়ক হিসেবে চাইছেন আজহার।
ভারতের এক সময়ের সফল অধিনায়ক অবশ্য মনে করেন, ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই ভিন্ন অধিনায়ক থাকা উচিত, ‘কোনো একজন অধিনায়কের পক্ষে তিন ফরম্যাটেই কাজ করে যাওয়া সম্ভব নয়। এটা বাড়াবাড়ি হয়ে যায়। আমার মনে হয় ভারতীয় বোর্ডও তিন ফরম্যাটে তিনজন ভিন্ন অধিনায়কের কথা ভাবতে পারে। অনেক দেশই তো এটা করছে।’

শিক্ষক ননীগোপাল রায়ের ওপর হামলার প্রতিবাদে লন্ডনে বিক্ষোভ

london-pic-2সৈয়দ সামি, ২ অক্টোবর ২০১৪:  যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছাত্র-ছাত্রীদের বিক্ষোভ সমাবেশে গড়ম হয়ে উঠে পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্ক । এই বিক্ষোভ সমাবেশটি সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয়  কলেজ, হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজ ও মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সাবেক শিক্ষক ননীগোপাল রায়ের ওপর হামলার প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত হয়।   বিক্ষোভের মাধ্যমে ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তাঁরা। সমাবেশে তাঁর প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা ছাড়াও বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন পেশাজীবীও অংশ নেন।

উল্লেখ্য, অধ্যক্ষ হিসেবে কর্মজীবন শেষ করার পর ননীগোপাল রায় যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ রহিমের প্রতিষ্ঠিত আলহাজ মোখলিছুর রহমান কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দেন। বেসরকারি এই কলেজের অবস্থান মৌলভীবাজার জেলার সদর উপজেলায়। ননীগোপাল গত চার বছর অধ্যক্ষ হিসেবে কোনো বেতন নেননি। গত ২৫ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠাতা এম এ রহিমের কাছে প্রথমবারের মতো বেতন চান। এতে এম এ রহিম ও তাঁর ভাই মুজিব উত্তেজিত হয়ে কলেজের মধ্যেই তাঁকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। তাঁদের মারধরে তিনি রক্তাক্ত হন। এরপর জোর করে তাঁর কাছ থেকে পদত্যাগপত্র ও সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। এম এ রহিম ও তাঁর সহযোগীরা তাঁকে এখনো ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। এতে তিনি ও তাঁর পরিবার ভীতসন্ত্রস্ত অবস্থায় দিন যাপন করছেন।
সমাবেশে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী এমসি কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী জামাল আহমেদ তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘প্রকৃত একজন শিক্ষক অনেকটা শিল্পীর মতো । শিল্পের নেশায় বুঁদ হয়ে একটা সময় সেটাকে আর চাকরি মনে করেন না। তেমনি একজন শিক্ষক আমাদের ননী গোপাল স্যার। তাঁকে লাঞ্ছনা করার ঘটনাটি আমাদের হতবাক করে দিয়েছে। নিরেট শান্তিপ্রিয় আমাদের স্যারের ওপর হামলার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।’
এমসি কলেজের অপর সাবেক শিক্ষার্থী অসীম চক্রবর্তী বলেন, ‘একজন শিক্ষক তাঁর পারিশ্রমিক চাইতে গিয়ে লাঞ্ছিত হয়েছেন শিক্ষানুরাগী নামধারী এক নরাধমের হাতে। এ ঘটনার দায়ভার দেশের শিক্ষিত মানুষেরা এড়াতে পারেন না। আমাদের প্রিয় স্যার বিগত চার বছর বিনা বেতনে অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর তাঁকেই কি না লাঞ্ছিত করল ওই কলেজের প্রতিষ্ঠাতা।’
সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন রবীন রায়, সাংবাদিক রহমত আলী, সুশান্ত দাশগুপ্ত, সাংবাদিক উজ্জ্বল দাশ, রুবেল আহমেদ, আরাফাত, সঞ্জয় দাস ও এনামুল হক প্রমুখ।

সিরিজ জিতল বাংলাদেশ ‘এ’

জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলকে দুই ম্যাচের ‘বেসরকারি টেস্টে’ অনায়াসে ধবলধোলাই করেছিল বাংলাদেশ ‘এ’ । তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে সফরকারীদের ‘ধবলধোলাই’ না করা গেলেও শেষ হাসিটা হাসল বাংলাদেশ ‘এ’ই। ফতুল্লায় শেষ ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলকে ৩১ রানে হারিয়েছে মার্শাল আইয়ুবের দল।

২৪০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দল শুরুতেই টালমাটাল। ৬৮ রানেই ফিরে যান চার টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। এরপর ভুসিমুজি সিবান্দা ও ম্যালকম ওয়ালার কিছুটা চেষ্টা চালান। কিন্তু স্বাগতিক দলের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে সে চেষ্টা শেষ পর্যন্ত ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। মুমিনুল হকের বলে ফেরার আগে ওয়ালারের সংগ্রহ সর্বোচ্চ ৫২। সিবান্দা ৩৭ রান করে ফিরেছেন জুবায়ের হোসেনের বলে।

জিম্বাবুয়ের আট উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ছোট্ট একটা চমক অপেক্ষা করছিল বাংলাদেশ ‘এ’ দলের জন্য। লুক জঙ্গে ও তাফাদজাওয়া কামুঙ্গোজির অবিচ্ছিন্ন নবম উইকেট জুটিতে আসে ৩৮ বলে ৪৪। এ যেন নিভে যাওয়ার আগে দপ করে জ্বলে ওঠা! শেষমেশ জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলের সংগ্রহ নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২০৮। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন ইলিয়াস সানি ও মুমিনুল হক।

এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ভালো সংগ্রহ এনে দেন অধিনায়ক মার্শাল ও লিটন দাস। প্রথম দুটো ম্যাচে ব্যর্থতার পর আজ হেসেছে মার্শালের ব্যাট। ৭৮ বলে ৫৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ এক ইনিংস খেলেছেন তিনি। নির্ধারিত ৫০ ওভারে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ইনিংস শেষ হয়েছে ২৩৯ রানে। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে ম্যাচ-সেরা মার্শাল।

উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান লিটন দাসের সংগ্রহ ৪৬। এ ছাড়া মোসাদ্দেক হোসেন ২৫, সৌম্য সরকার ২২ ও ফরহাদ রেজা করেন ৩২ রান। মুমিনুল আজও ছিলেন ব্যর্থ। ব্যর্থতার তালিকায় আজ নাম লিখিয়েছেন নাঈম ইসলাম। এই দুজনের ব্যাট থেকে এসেছে যথাক্রমে ৬ ও ৯ রান। জিম্বাবুয়ের বোলারদের মধ্যে দারুণ বল করেছেন মুজারাবানি। ৩৩ রানে ৪ উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া কামুনগোজি ৩৫ রানে নিয়েছেন দুটো, একটি করে উইকেট নিয়েছেন জোংউই ও ওয়ালার।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net