শিরোনাম

Monthly Archives: জুন ২০১৫

লেবার পার্টি থেকে বহিষ্কার বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমরান

যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টি থেকে বহিষ্কার হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমরান হোসেন। তিউনিসিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার পরদিন ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার জন্য তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। গত মে মাসে অনুষ্ঠিত যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট নির্বাচনে নর্থ ইস্ট হ্যাম্পশায়ার আসনে লেবার দলের প‌ক্ষে এমপি পদে প্রার্থী হয়েছিলেন আমরান। তিনি নির্বাচনে হেরে যান।
আমরানের আচরণকে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতদের প্রতি ‘অসম্মানজনক এবং অগ্রহণযোগ্য’ বলে উল্লেখ করেছে লেবার পার্টি। গতকাল সোমবার রাতে দলটি আমরানকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্তের কথা জানায়। ২৯ বছর বয়সী আমরান প্রথমবার এমপি পদে প্রার্থী হয়েই প্রচারণায় বেশ সাড়া ফেলেছিলেন। চিকিৎসাবিজ্ঞানে পড়াশোনা করা আমরান জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা ইংল্যান্ড শাখার ন্যাশনাল ডেলিভারি কর্মকর্তা। আমরানের আদি বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলায়।
তিউনিসিয়ার রাজধানী তিউনিস থেকে প্রায় ১৪০ কিলোমিটার দক্ষিণের সুছে এলাকার সমুদ্র সৈকত সংলগ্ন ইম্পেরিয়াল মারহাবা হোটেলে গত শুক্রবার দুপুরে এক লোক এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে ৩৮ জন নিহত হয়। আহত হয় আরও ৩৬ জন। নিহতদের মধ্যে অন্ততপক্ষে ৩০ জন ব্রিটিশ পর্যটক ছিলেন। এ সময় ব্রিটিশ রাজনীতিক আমরান হোসেন চার বন্ধুসহ তিউনিসিয়ায় ছিলেন। তারা মারহাবা সৈকতের কাছেই একটি হোটেলে অবস্থান করছিলেন। তাঁরা হামলার পরদিন শনিবার ঘটনাস্থলে যান। সেখানে তোলা কিছু সেলফি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়ার পর থেকেই এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

আমরান হোসেন তাঁর ফেসবুকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেন, হামলার পরদিন শনিবার তাদের যুক্তরাজ্যে ফেরার সময় নির্ধারিত ছিল। হতাহতদের প্রতি সহমর্মিতা এবং শ্রদ্ধা জানাতে তাঁরা শনিবার ফুল নিয়ে মারহাবা সৈকতে যান। সেখানে তাঁরা প্রায় ৩০ মিনিট অবস্থান করেন।
আমরান হোসেন বলেন, তিউনিসিয়ার সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায়  বেশ মর্মাহত। হতাহতদের স্মৃতিকে ধারণ করে রাখতেই তাঁরা সেখানে ছবি তুলেছিলেন। তিনি আরও বলেন, তাদের হোটেল থেকে একটি হাতের ব্যান্ড পরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে তিনি ওই ব্যান্ড না খোলার সিদ্ধান্ত¯নিয়েছেন। এ ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেন আমরান।
এদিকে নিহত ব্রিটিশ নাগরিকদের স্মরণে আগামী শুক্রবার দুপুর ১২টায় দেশব্যাপী এক মিনিট নীরবতা পালন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন গতকাল সোমবার পার্লামেন্টে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। ২০০৫ সালের ৭ জুলাই লন্ডনে বোমা হামলার পর তিউনিসিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় সবচেয়ে বেশি ব্রিটিশ নাগরিকের প্রাণহানির ঘটনা ঘটল।

কৌতুকাভিনেতা রাশেদ রানা পাপ্পু আর নেই

দর্শকপ্রিয় কৌতুকাভিনেতা রাশেদ রানা পাপ্পু আর নেই। (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। আজ সোমবার ভোরে সেহরি খাওয়ার পরপরই হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি রাজধানীর লালবাগে নিজ বাসায় ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৭ বছর। পাপ্পুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাঁর ছোট মামা মো: জাভেদ।
আজ সোমবার বাদ জোহর রাজধানীর লালবাগের কাজী দেওয়ান তালগাছ ওয়ালা মসজিদে নামাজে জানাজার পর তাঁকে আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হয় বলে জানান জাভেদ। তিনি আরও জানান, চার মাস আগে হার্টের সমস্যাজনিত কারণে বেশ কিছুদিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন পাপ্পু। সম্প্রতি তাঁর শারীরিক অসুস্থতার কারণে নিয়মিত শো করতে পারতেন না।
বিটিভির ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘শুভেচ্ছা’য় অংশ নিয়ে সবার কাছে পরিচিতি পান পাপ্পু। এই ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের উপস্থাপক আব্দুন নূর তুষার প্রথম আলোকে বলেন, ‘পাপ্পু অনেক শক্তিশালী একজন অভিনেতা। কোনো বিষয় একবার বুঝিয়ে দিলেই সে খুব দ্রুত তা আয়ত্ত করে নিতে পারত। তা ছাড়া খুব সহজে অন্যকে অনুকরণও করতে পারত। তার মৃত্যুর খবরটা শুনে খুব খারাপ লাগল।’
মৃত্যুকালে পাপ্পু স্ত্রী নিপা ও এক সন্তান আবিরকে রেখে গেছেন। তাঁর অকাল মৃত্যুতে সংস্কৃতি অঙ্গনে শোক নেমে আসে।

লন্ডনে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের মৃত্যুবার্ষিকী পালন

uk nirmul comettee-2

যুদ্ধাপরাদের বিচার চলছে। আমাদের দাবি, প্রতিটি মানবতাবিরোধী অপরাধীর  সর্বোচ্চ সাজার পাশাপাশি তাদের সম্পদও যেন বাজেয়াপ্ত করা হয়। গল ২৬ জুন বিকেলে পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেনের একটি রেস্টুরেন্টে ঘাতক-দালাল  নির্মূল কমিটি যুক্তরাজ্য শাখা আয়োজিত শহীদ জননী জাহানারা ইমামের  ২১তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তারা এ দাবি জানান। বক্তারা বলেন, কায়িকভাবে মাত্র আড়াই বছর আমাদের আন্দোলনের নেতৃত্বে ছিলেন শহীদ জননী জাহানারা ইমাম। দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ১৯৯৪-এর ২৬ জুন তিনি মৃত্যুবরণ করেন। শহীদ জননী মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যে মশাল আমাদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন নতুন প্রজন্ম তা বহন করে এগিয়ে চলেছে কাক্ষিত লক্ষ্যের দিকে। ঘাতাক-দালাল নির্মূল কমিটি যুক্তরাজ্য শাখার সহ-সভাপতি সাংবাদিক ইসহাক কাজলের সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারন সম্পাদক জামাল আহমদ খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লন্ডনে নিযুক্ত বাংলাদেশ মিশনের প্রেস মিনিস্টার শহীদ মুক্তিযুদ্ধা লেঃ কর্নেল আব্দুল কাদির ও ঘাতাক-দালাল নির্মূল কমিটির ফাউন্ডার সদস্য হাসনা হেনার সুযোগ্য সন্তান সাংবাদিক নাদিম কাদির, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ। সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক প্রেস মিনিস্টার সাংবাদিক আবু মুসা হাসান, ইউকে ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট ও কেন্দ্রীয় সদস্য সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ, ইউকে নির্মূল কমিটির সহ-সভাপতি সৈয়দ এনামুল ইসলাম, ইউকে নির্মূল কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সাংবাদিক মতিয়ার চৌধুরী, ইউকে নির্মূল কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পুষ্পিতা গুপ্তা, কমিটির সাবেক সভাপতি জুলি বেগম, শাহাব উদ্দিন বেলাল, যুক্তরাজ্য গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম আহ্বায়ক অজয়ন্তা দেব রায়, পিয়া মোয়াইয়েন, প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক একাউনটেন্ট মাহমুদ এ রউফ, ইউকে নির্মূল কমিটির প্রেস এন্ড পাবলিকেশন সেক্রেটারি এনামুল হক, ইউকে নির্মূল কমিটর কোষাধ্যক্ষ শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলাল, শেখ কামাল স্মৃতি সংসদ ইউকের সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা আলতাফুর রহমান চৌধুরী মিতা প্রমুখ। বক্তারা শহীদ জননীর স্মৃতিচারণ করে বলেন, আমি এখানে এসেছি একজন শহীদের সন্তান হিসেবে। তিনি বলেন শহীদ জননীর অসমাপ্ত কাজকে সমাপ্ত করতে হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যে মশাল তিনি আমাদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন সেই মশাল বহন করে আমাদের সম্মুখে এগুতে হবে।

ব্রিটেনে দরিদ্র শিশুর সংখ্যা ২.৩ মিলিয়ন

child poverty

গণতন্ত্রের সূতিকাগার আর উচ্চ আয়ের দেশ ব্রিটেনে এখনো ২.৩ মিলিয়ন শিশু দারিদ্রতার মধ্যে বসবাস করছে। ডিপার্টমেন্ট অব ওয়ার্ক অ্যান্ড পেনশন এর মতে ২০১১-২০১২ এবং ২০১৩ ও ২০১৪ সালে শিশু দারিদ্র সীমার সংখ্যা অপরিবর্তীত আছে অর্থাৎ প্রতি ৬ জনের মধ্যে ১ জন শিশু দারিদ্রতার মধ্যে আছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩-২০১৪ সালে নিম্ন আয়ের পরিবারে ১৫ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ৯.৬ মিলিয়ন লোক  রয়েছেন এদেশে।

১৯৯৮-৯৯ সালের সঙ্গে তুলনা করলে এই সংখ্যা ১১.২ মিলিয়ন থেকে নেমে গত বছর দাঁড়িয়েছে ১ লাখে।

একটি পরিবার দারিদ্র সীমার মধ্যে থাকা মানে তার আয় সপ্তাহে ২৭২ পাউন্ড। পেনশন সেক্রেটারি ইয়ান ডানকান স্মীথ বলছেন, ১৯৮০ সালের পর ব্রিটেনে সর্বনিম্ন শিশু দারিদ্রতা বিরাজ করছে। পক্ষান্তরে শ্যাডো চ্যান্সেলর ক্রিস লেসলি বলেছেন, এই চিত্র নিশ্চিত করে, বর্তমান সরকার শিশু দারিদ্রতা রোধে ও মোকাবেলায় পুরোপুরি ব্যর্থ। অবশ্য ডানকান স্মীথ বলেছেন এর প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে সরকার কাজ করছে।

চ্যারিটি সংস্থার বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকার যেভাবে আরও বেনিফিট কর্তন নীতি গ্রহণ করেছে, এমনকি চাইল্ড ট্যাক্স ক্রেডিট যেভাবে কর্তন করার নীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, তাতে এই চিত্র এখনই নির্দেশ করছে শিশু দারিদ্রতা আরও বেড়ে যাবে।

ব্যাটিং পাওয়ার প্লে বাদ

ওয়ানডে ক্রিকেটে আর থাকছে না ব্যাটিং পাওয়ার প্লে। ব্যাট ও বলের লড়াইয়ে ভারসাম্য আনতে ওয়ানডে ক্রিকেটের ফিল্ডিংয়ে আরও কয়েকটি পরিবর্তন এনেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানরা এখন বোলারদের চেয়ে অনেক বেশি সুবিধা পান উল্লেখ করে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি ব্যাটিং পাওয়ার প্লে বাদ দেওয়ার সুপারিশ করেছিল। বার্বাডোজে আইসিসির বার্ষিক সভায় শুক্রবার তা অনুমোদিত হয়।
প্রথম ১০ ওভারে পাওয়ার প্লের সময় বাধ্যতামূলক দুই জন ‘ক্লোজ ফিল্ডার’ রাখার নিয়ম বাদ দেওয়া হয়েছে।
আর এখন থেকে শেষ ১০ ওভারে ত্রিশ গজের বাইরে সর্বোচ্চ পাঁচ জন ফিল্ডার রাখা যাবে।
ফলে এখন থেকে প্রথম ১০ ওভারে সর্বোচ্চ দুই জন খেলোয়াড় ত্রিশ গজের বাইরে থাকতে পারবেন। পরের ৩০ ওভারে সর্বোচ্চ চার জন খেলোয়াড় এবং শেষ ১০ ওভারে সর্বোচ্চ পাঁচ জন ত্রিশ গজের বাইরে থাকতে পারবেন।
এখন তাই প্রয়োজন অনুযায়ী আক্রমণাত্মক বা রক্ষণাত্মক ফিল্ডিং সাজাতে পারবেন অধিনায়ক।
ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে সব ‘নো’ বলেই এখন ফ্রি-হিট দেওয়া হবে। আগে কেবল কেবল পায়ের ‘নো’ বলে (ওভার স্টেপিং) ফ্রি-হিট দেওয়া হতো।
আগামী ৫ জুলাই থেকে নিয়মগুলো কার্যকর হবে বলে আইসিসি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে।
ব্যাটিং পাওয়ার প্লে বাদ দেওয়ার কারণ হিসেবে আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন জানান, এই পাঁচ ওভারে ত্রিশ গজ বৃত্তের বাইরে মাত্র তিন জন ফিল্ডার থাকার সুযোগ নিয়ে ব্যাটসম্যানরা তাণ্ডব চালায়। সাধারণত ৩৬তম থেকে ৪০তম ওভার পর্যন্ত এই পাওয়ার প্লে নেওয়া হতো। সঙ্গে শেষ ১০ ওভার মিলিয়ে শেষ ১৫ ওভারে একটি ভালো ব্যাটিং উইকেটে ব্যাটসম্যানরা ইচ্ছেমতো মেরে খেলে।

সুস্থ থাকতে চাইলে রোজায় যা খাবেন, যা খাবেন না

পবিত্র রমজান সাধনার মাস।  রমজান মাসের ফজিলত অন্যান্য মাসের চেয়ে অনেক বেশি।  এ মাসে মহান আল্লাহ পাক আল কোরআন নাযিল করেছেন।  এ মাসের শবে ক্বদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।  এ মাসে সারাদিন উপোস থাকার পর মানুষের খাদ্য চাহিদা বাড়ে।  শারীরিকভাবেও কিছুটা দুর্বল অনুভুত হয়।

রমজান এলে আমাদের খাদ্যাভাস থেকে শুরু করে সব ক্ষেত্রেই কিছুটা পরিবর্তন আসে।  তাই স্বাস্থ্য নিয়ে কিছুটা জটিলতা হতে পারে।  তবে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন থাকলে এসব সমস্যা এড়িয়ে চলা সম্ভব।

রমজানে আমাদের নতুন রুটিনে খাবার খেতে হয়।  মেনুতেও চলে আসে অনেকটা বৈচিত্র্য।  অনেক সময় প্রথম প্রথম নতুন খাদ্যাভ্যাসে শরীরের ওপর বিরুপ প্রভাবও পড়তে পারে।  যে কারণে অনেকেরই আবার অসুস্থ হয়ে বাকি রোজাগুলো ঠিকমত পালন করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।  এর মূলে রয়েছে খাওয়া-দাওয়া।

রমজানে যে ধরনের হতে পারে

কোষ্ঠ কাঠিন্য।  অতিরিক্ত ভাজাপোড়া জিনিস খাওয়া, পানি কম খাওয়া এবং খাবার মেনুতে আঁশযুক্ত খাবার না রাখায় এ সমস্যা হতে পারে।

মাথাব্যথা হতে পারে।  যাদের কফি বা ধূমপানের অভ্যাস আছে তারা অনেকসময় সারাদিনের রোজায় মাথাব্যথায় আক্রান্ত হতে পারেন।

লো ব্লাড প্রেনার হতে পারে।  কারণ তরল খাবার কম গ্রহণ করার কারণে এটি হতে পারে।

হজমে সমস্যা ও পেট ফাঁপা।  অনেক সময় হজমেও সমস্যা হতো পারে।

পেপটিক আলসার, গ্যাস্ট্রিক, বুকজ্বালাও হতে পারে।  সারাদিন উপোস থাকার কারণে অনেকের এসিডিটিও হয়ে থাকে।  মনে রাখবেন, অতিরিক্ত তেল মশলাযুক্ত খাবার, কফি এবং সফট ড্রিঙ্কস এ অবস্থাকে আরো বাড়িয়ে দিতে পারে।

যে ধরনের খাবার খাওয়া উচিত

১. রোজা রাখার পর ইফতারির সময় অনেকেই অতিরিক্ত খেয়ে ফেলেন। নিজের স্বাস্থ্যের ক্ষতি এড়ানোর জন্যই আপনাকে ইফতারিতে অতিরিক্ত খাদ্যগ্রহণ থেকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে।  সারাদিন অভুক্ত থাকার পর হঠাৎকরে বেশি খাবার একসঙ্গে খেলে আপনার পরিপাকযন্ত্রে গণ্ডগোল দেখা দিতে পারে।

২. ইফতারিতে অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার বর্জন করুণ।  যতদুর সম্ভব ভাজাপোড়া খাবার কম খাবেন।  এতে করে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

৩. রোজায় লবণ পরিমাণ মত খেতে চেষ্টা করতে হবে।  কারণ লবণ বেশি খেলে পানির তৃষ্ণা বেশি লাগবে।  যেহেতু আপনি সারাদিন পানি পান করতে পারবেন না, তাই আপনার শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দিতে পারে।

৪. পানিশূন্যতা দুর করতে চিনি দিয়ে গোলানো শরবত অথবা সফট ড্রিঙ্কসের ওপর বেশি নির্ভর না করাই ভালো।  ঘরে তৈরি শরবত ও ফলের রস পরিমাণমত পান করা বুদ্ধিমানের কাজ।

৫. লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে প্রতি ইফতারে এবং সেহরিতে যথেষ্ট ফল ও শাক সবজি থাকে।

বেশি করে যেসব খাবার খাবেন

• আঁশযুক্ত খাদ্য

• কার্বোহাইড্রেটসমৃদ্ধ খাদ্য

• দেশি ফল, শাকসবজি ইত্যাদি

• প্রচুর পরিমাণ পানি

বেশি পরিমাণ খাদ্যগ্রহণ, ভাজাপোড়া খাবার, অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার, মাত্রাতিরিক্ত চা পান ও সফট ড্রিঙ্কস থেকে দূরে থাকতে হবে।  প্রথম থেকে  এসব মেনে চললে রোজা রাখার পরও আপনি সুস্থ থাকবেন।

বাংলাদেশের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলা নিয়ে পাকিস্তানের ষড়যন্ত্র

ক্রিকেট বিশ্বে বাংলাদেশ এখন নতুন আতংক। বিশেষ করে ওয়ানডে ক্রিকেটে। ওয়ানডে ক্রিকেটে যে কোন দলকেই এখন হারাতে পারে টাইগাররা। আর এটা শুরু বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পর থেকে। বাংলাদেশের মাটিতে পাকিস্তান আর ভারতের সিরিজ হারার পর থেকে সব দলের কাছেই বাংলাদেশ এখন নতুন আতংক। বাংলাদেশের মাঠের সাফল্য যত বাড়ছে সেই সাথে বাড়ছে টাইগারদের বিপক্ষে ষড়যন্ত্রও। আর এটা ক্রমেই প্রকট হয়ে উঠছে।

ভারতকে টানা দুই ম্যাচে হারিয়ে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলা নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। সেই সাথে পাকিস্তান আর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পিছনে ফেলে উঠে এসেছে র‌্যাংকিংয়ের সাত নাম্বারে। কিন্তু এখন কি ভাবে বাংলাদেশকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি থেকে বাদ দেয়া যায় সেই চেষ্টা চলছে।

বাংলাদেশ যাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতে খেলতে না পারে তা নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। আর এ জন্য সামনে আনা হচ্ছে জিম্বাবুয়ের, পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ আয়োজনের বিষয়টি। আগামী আগস্টেই এই সিরিজ আয়োজনের চেষ্টা চলছে। আর চ্যাম্পিয়নস ট্রফির বাইরে থাকা জিম্বাবুয়েই এ ত্রিদেশীয় সিরিজের মূল উদ্যোক্তা। তারাই উদ্যোগী হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘সম্প্রতি আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করেছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে। তবে এখনো কিছুই চূড়ান্ত হয়নি।’ জিম্বাবুয়ে যেহেতু আয়োজক, স্বাভাবিকভাবেই তারাই আমন্ত্রণ জানাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। কিন্তু হঠাৎ কেন এ পরিকল্পনা? বিশেষ করে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ দুটো ম্যাচ জয়ের পর? চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলতে পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দুই দলই মরিয়া। পাকিস্তান যথেষ্ট উৎসাহী এ সিরিজ খেলতে। র‌্যাংকিংয়ের জন্য এ সিরিজে অংশ নিতে যথেষ্ট আগ্রহী ওয়েস্ট ইন্ডিজও। তাই বাংলাদেশ থেকে পিছিয়ে পড়া পাকিস্তান আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ যে সায় দিবে এটাই স্বাভাবিক।
ভারতের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতে খেলার সমীকরণটা ছিল ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের ছয়টি ওয়ানডের দুটি জিতলেই বাংলাদেশ খেলবে ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফি। ভারতের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের পর বাংলাদেশ সেই হিসাব সম্পন্ন করেছে।

কিন্তু জিম্বাবুয়েতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ হলে মাশরাফি বাহিনীকে পড়তে হবে জটিল অঙ্কে। আগস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের দ্বিপক্ষীয় সিরিজ আয়োজনের পরিকল্পনা আগেই ছিল জিম্বাবুয়ের। এখন এর মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ যোগ হওয়ায় বিষয়টি বেশ গোলমেলে হয়ে গেছে। কারণ, ভারতের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ জেতায় র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এখন সাতে। অষ্টম দল হিসেবে শুধু লড়াইয়ের কথা পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের। এফটিপি অনুযায়ী, আগামী মাসে শ্রীলংকার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ রয়েছে পাকিস্তানের। এরপর আগস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। তবে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে কোয়ালিফাইয়ের ‘ডেডলাইন’ অনুযায়ী, সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোনো ম্যাচ ছিল না। এখন হিসাবটা গোলমেলে করে দিতে পারে আলোচিত এ ত্রিদেশীয় সিরিজ।

স্ত্রী নির্যাতনের দায়ে সাংবাদিক মুকুল গ্রেফতার

স্ত্রীকে নির্যাতনের দায়ে করা মামলায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল জিটিভির বার্তা সম্পাদক রকিবুল ইসলাম মুকুলকে গ্রেফতার করেছে মিরপুর মডেল থানার পুলিশ। শুক্রবার দিবাগত রাত আড়াইটার সময় সেগুনবাগিচা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মিরপুর মডেল থানার ওসি সালাহ উদ্দিন খান গনমাধ্যমকে জানান, রকিবুল ইসলাম মুকুলের স্ত্রী নাজনীন আখতারের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি এখন মিরপুর মডেল থানায় পুলিশ হেফাজতে আছেন।

নাজনীন আখতার গনমাধ্যমকে  জানান, নিতান্ত নিরুপায় হয়ে তিনি এই মামলা করেছেন। এতদিন তার শিশু কন্যার ভবিষ্যতের কথা ভেবে মামলা করেনি।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর একমাত্র মেয়ে চন্দ্রমুখী মারা যাওয়ার পর এই শোক সহ্য করতে না পেরে ৫ তালা থেকে লাফিয়ে পড়ে গুরুতর আহত হন। দীর্ঘদিন তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে নাজনীন ও রকিবুল সন্তান গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন। এই সময় রকিবুল মেহরুন বিনতে ফেরদৌসের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে এবং অন্তঃসত্ত্বা নাজনীনের ওপর অত্যাচার শুরু করেন।

দ্বিতীয় সন্তান জন্মের পরে একবারের জন্যও খোঁজ নেননি।  নাজনীন অভিযোগ করেন, মুকুল নিয়মিত তার কাছে টাকা নিত। সম্প্রতি রাজউক পূর্বাচলে বরাদ্দ পাওয়া একটি প্লটের কিস্তির জন্য ১৪ লাখ টাকা নেন মুকুল। পরে সেই প্লট নিজের নামে লিখে নিয়ে বিক্রি করে দিয়ে অর্থ আত্মসাত করেন মুকুল।

নাজনীন জানান, মুকুল প্রায়শই তার গায়ে হাত তুলতেন। একবার অন্তঃসত্ত্বা নাজনীনকে আহত অবস্থায় তার বন্ধুরা হাসপাতালে ভর্তি করে।

নাজনীন মেহরুন বিনতে ফেরদৌসের বিরুদ্ধেও মামলা করেছেন। তবে তাকে এখনও গ্রেফতার করা হয়নি।

কুয়েতের মসজিদে আইএস এর আত্মঘাতী বোমা হামলা, নিহত ১৬

কুয়েতের রাজধানীতে আল-ইমাম-আল-সাদিক নামে এক শিয়া মসজিদে জুম’আর নামাজ চলাকালে আত্মঘাতী বোমা হামলা হয়েছে। সেখানে কমপক্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছেন বলে খবর প্রকাশ করেছে গলফ নিউজ। এদিকে এবিসি তার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, এই হামলার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গি সংগঠন আইএস। সেখানে মৃতের সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থাগুলো।
সম্প্রতি সৌদি আরব ও ইয়েমেনে একইভাবে হামলা চালায় আইএস। তাদের একটি গ্রুপের পক্ষ থেকে এই হামলার দায় স্বীকার করা হয়েছে। isi2

কুয়েত সুন্নি মতাদর্শে বিশ্বাসী হলেও দেশটিতে প্রচুর শিয়া মতদর্শী মুসলিম রয়েছেন। আর সে কারণেই পবিত্র রমজান মাসে শিয়া মসজিদে এই হামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আইএস’র হামলাকারী গ্রুপটি।

সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধতা পেলো যুক্তরাষ্ট্রে

যুক্তরাষ্ট্রের ১৪টি অঙ্গরাজ্যে সমকামীদের বিয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকার মধ্যেই আজ শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে সমকামীদের বিয়ের বৈধতা দেয়া হলো।

পুরো যুক্তরাষ্ট্রে সমকামীদের বিয়ে করার অধিকার দিয়ে রায় দিয়েছেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। এই রায়কে সমকামীরা তাঁদের ঐতিহাসিক বিজয় হিসেবে দেখছেন। খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এটিকে ‘আমেরিকার বিজয়’ বলে অভিহিত করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ১৪টি অঙ্গরাজ্যে সমকামীদের বিয়ের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা ছিল এই রায়ের ফলে সে নিষেধাজ্ঞা আর থাকল না।

বিবিসির খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম সমকামী বিয়ে হয় ২০০৪ সালে। ১১ বছর আগে ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের আদালত এমন বিয়ের পক্ষে রায় দেন। এরপরই সেখানে সমকামীদের বিয়ে হয়।
আজ শুক্রবার বিচারক অ্যান্থনি কেনেডি বাদীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বলেন, ‘আইনের চোখে সবার মর্যাদা এক। সংবিধান সবার অধিকার রক্ষার কথা বলা হয়েছে।’
বারাক ওবামা বলেছেন, ‘যখন যুক্তরাষ্ট্রের সব নাগরিকদের সমান চোখে দেখা হবে তখনই আমরা অনেক বেশি স্বাধীন হব।’
সুপ্রিম কোর্ট মিশিগান, ওহাইও, কেন্টাকি ও টেনেসি অঙ্গরাজ্যগুলোর পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে আজ আদেশ দিয়েছেন। গত বছর এসব অঙ্গরাজ্যে সমলিঙ্গের বিয়ের ওপর কড়াকড়ি বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। তবে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, দেশের সংবিধান এমন নিষেধাজ্ঞাকে অনুমোদন করে না। আদালত বলেছেন, সমকামীরা যেখানেই বাস করুক না কেন, তাঁদের বিয়ে করার অধিকার আছে।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net