শিরোনাম

Monthly Archives: আগস্ট ২০১৫

তদন্তের দায়িত্বে থাকা শাবি’র ৩ ছাত্রলীগ নেতাকে হামলার দায়ে বহিস্কার

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) ছাত্রলীগ নেতাকর্মী কর্তৃক শিক্ষকদের ওপর হামলা ও লাঞ্ছনার পর হামলার তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির ৩ নেতাকে হামলার দায়ে সাময়িকভাবে বহিস্কার করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহি সংসদ।

image

 

সোমবার (৩১ আগস্ট) সাময়িক এ বহিস্কারাদেশ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে এই তিন নেতাকে শোকজও করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ছাত্রলীগ থেকে ‘আগাছা’ পরিস্কারের নির্দেশ দেওয়ার পর পরই এ বহিস্কারাদেশ আসল।

বহিস্কৃত ছাত্রলীগ নেতারা হলেন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সাইদ আকন্দ, সহ-সভাপতি অঞ্জন রায়, ১ম যুগ্ম সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম সবুজ।

image

এ তিনজনই হামলা পরবর্তী শাবি ছাত্রলীগ কর্তৃক গঠিত ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটির সদস্য ছিলেন। গত রবিবার বিকেলে শাবিপ্রবি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থ পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করার কথা জানিয়েছিলেন।

সিলেট ক্যামব্রিয়ান কলেজ এর নবীন বরণ অনুষ্ঠিত

মেধা ও নৈতিক শিক্ষার সমন্বয়ে ছাত্র-ছাত্রীরদের নিজেকদের গড়ে তুলতে হবে। প্রত্যেকের মেধাকে ভাল কাজে ব্যবহার করতে হবে। আমাদের মেধা ও নৈতিকতাকে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে। ৩০ আগস্ট, রবিবার বেলা  ১১ টায় সুবিদবাজারস্থ সিলেট ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ‘নবীন বরণ’ অনুষ্ঠানে সিলেট ক্যামব্রিয়ান কলেজের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমদ চৌধুরী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
সিলেট ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ এর প্রতিষ্ঠাতা ও অধ্যক্ষ শিব্বির আহমদ ওসমানী’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, সিলেট ক্যামব্রিয়ান কলেজের সিনিয়র প্রভাষক খয়রুন নেছা চৌধুরী নাজ, প্রভাষক মির্জা বশির আহমদ, অনুষ্ঠানের সম্বয়ক প্রভাষক নজরুল ইসলাম, প্রভাষক তাহরিমা সুবহান, প্রভাষক নাইমা সুলতানা।
সভাপতির বক্তব্যে এস.এ.ও ফাউন্ডেশন এর চেয়ারম্যান, সিলেট ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ এর প্রতিষ্ঠাতা ও অধ্যক্ষ শিব্বির আহমদ ওসমানী বলেন, তোমদের জন্য এই সময়টা হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্ব। এ গুরুত্বপূর্ণ সময়কে ঠিকমত কাজে লাগাতে পারলে তোমরা জীবনে সফল হতে পারবে। সকল সফল ব্যক্তিরাই জীবনের প্রত্যেকটি মুহুর্তকে মূল্যায়ন করেছিলেন। তাই তারা আজ স্মরনীয় হয়ে আছেন।
সিলেট ক্যামব্রিয়ান কলেজের শিক্ষার্থী খাইরুল আহমদ ও তুলি মল্লিক এর পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী সামিয়া জামান লিনা, মোঃ আবুল বাশার, রামিনা আক্তার, মিনহাজ আহমদ, আনসার মিয়া, ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী ইসহাক শিকদার রাবি, শাহরিয়ার ইমন, জমশের আলী, পল্লবী দেবনাথ প্রমূখ।
সিলেট ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ এর শিক্ষার্থী ফয়সল আহমদের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও শুভ গওলা’র গীতা পাঠের মাধ্যমে সূচিত অনুষ্ঠানে নবীনদের ফুল দিয়ে বরণ করেন দ্বাদশ শ্রেণি স্কুল শাখার শিক্ষার্থীরা। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।

আল-অ্যাডভাইজরী সার্ভিসেস এর উদ্বোধন : নবীন বিনিয়োগকারীদের সহযোগিতার আশ্বাস

ইয়াং এন্টারপ্রনারদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেবার আশ্বাস দিলেন লন্ডনের  ডেপুটি মেয়র স্টিফেন গ্রিনহাফ।
সদ্য প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আল-অ্যাডভাইজরী ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেস লিমিটড এর বিজনেস লঞ্চ অনুষ্ঠানে লন্ডনের বিভিন্ন বারা থেকে আসা অতিথিদের প্রশ্নের জবাব দেন তিনি।
AL-ADVISORY2
শনিবার ২৯ আগস্ট দুপুরে ফিতাকেটে এই নতুন মরগেজ,ইন্সুরেন্স সার্ভিস ও লিগ্যাল সাভির্সেস অ্যাডভাইজরী প্রতিষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন ডেপুটি মেয়র।এ সময় অন্যদের মধে্য উপস্থিত ছিলেন সাবেক এমপি প্রার্থী শাহগীর বক্ত ফারুক,মিনা রহমান,প্রতিষ্ঠানের মরগেজ বিশেষজ্ঞ ভিক্টর ডেইজ,আল্-অ্যাডভাইজরী ম্যানেজমেন্টের পরিচালক সাইফুল ইসলাম ,রইছ মিয়া,সাফা সলুইশনের প্রতিষ্ঠাতা সায়েব খান,সিএফওবি নেতা সাইয়েদ হোসেন আহমদ,কমিউনিটি নেতা গয়াসুর রহমান গয়াছ ,নিউহাম কনজারভেটিভ পাটর্ির ভাইস চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান সহ আরো অনেকে। সভায় অন্যান্য অতিথিরা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের কাস্টমারদের সর্বোচ্চ সার্ভিস ও সততার দিকে সজাগ দৃস্টি রাখার আহবান জানান।পাশাপাশি কমিউনিটির সেবা ও চ্যারিটি কাজে তাদেরকে অগ্রণী ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

 

নীলাদ্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িত একজনকে শনাক্ত

ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত একজনকে শনাক্ত করা হয়েছে বলে দাবি করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি।
গতকাল শনিবার রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মনিরুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ইতিমধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শনাক্ত হওয়া ব্যক্তি এই চারজনের একজন। একজন সাক্ষী ওই ব্যক্তিকে শনাক্ত করেছেন। তবে শনাক্ত হওয়া ওই ব্যক্তির নাম সুনির্দিষ্ট করে কমিশনার বলেননি।
রাজধানীর গোড়ানের ভাড়া বাসায় দুর্বৃত্তরা ঢুকে গত ৭ আগস্ট নীলাদ্রিকে হত্যা করে। এ ঘটনায় পরদিন তাঁর স্ত্রী আশামণি অজ্ঞাতনামা চারজনকে আসামি করে খিলগাঁও থানায় হত্যা মামলা করেন।
এ মামলায় এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হওয়া চারজন হলেন সাদ আল নাহিয়ান, মাসুদ রানা, কাউসার হোসেন খান, কামাল হোসেন সরদার। ডিবির দাবি, এই চারজনই নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য। এঁদের মধ্যে নাহিয়ান ও মাসুদ রানাকে তিন দফায় রিমান্ডে নেওয়া হয়। বর্তমানে কাউসার ও কামাল পাঁচ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। রিমান্ডের সময় নিলয়ের স্ত্রী আশামণিসহ বেশ কয়েকজনের সঙ্গে একাধিকবার তদন্তসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা কথা বলেছেন।
তবে তদন্তকারীদের ধারণা, এই চারজনের মধ্যে নীলাদ্রি হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে নাহিয়ানের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য থাকতে পারে। সে জন্য তাঁকে তিন দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।
ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিন হত্যাচেষ্টায় নাহিয়ানের অংশ নেওয়ার বিষয়টি অনেকটাই নিশ্চিত হয়েছেন তদন্তসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। এ কারণে নীলাদ্রি হত্যার বিষয়ে তাঁর কাছে তথ্য থাকার বিষয়টি উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান মুক্তিযোদ্ধা নন : সনদ বাতিল

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামানের মুক্তিযোদ্ধা সনদ  ভুয়া প্রমাণিত হওয়ায় সনদ ও গেজেট বাতিল করা হয়েছে। তিনি বর্তমানে প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদায় বেসরকারীকরণ কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে কাজ করছেন। এর আগে জনপ্রশাসনের তিন সচিব ও একজন যুগ্ম সচিবের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। পরে মন্ত্রণালয়ের তদন্তে প্রমাণ মেলে, মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান মুক্তিযোদ্ধা নন।
মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামানের সনদ বাতিলের কথা নিশ্চিত করে গতকাল শনিবার মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, সে সময় এই প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, তিনি মুক্তিযোদ্ধার সনদ নেওয়ার জন্য পাঁচটি ধাপের চারটিই শেষ করেছেন। যে ধাপটি শেষ করেননি, সেই অপরাধ তাঁর নয়। অতি উৎসাহী কর্মকর্তারা শেষ ধাপ না মেনে তাঁর গেজেট প্রকাশ করেন, যা এনএসআইয়ের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।
মন্ত্রী বলেন, ‘মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামানের বক্তব্য বিবেচনায় আমরা সে সময় সনদ বাতিল না করে স্থগিত করেছি। তাঁকে শুনানিরও সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি যে মুক্তিযোদ্ধা, তার সপক্ষে কোনো যুক্তি তুলে ধরতে না পারায় আমরা তাঁর সনদ বাতিল করেছি।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ‘আমার সনদ স্থগিত রয়েছে বলে জানি। বাতিল হয়েছে কি না তা আমাকে এখনো জানানো হয়নি।’
‘চাকরির শেষ সময়ে মুক্তিযোদ্ধা সনদ নেওয়ার হিড়িক’ শিরোনামে ২০১৪ সালের ২২ জানুয়ারি প্রথম আলোতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেখানে মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামানসহ কয়েকজন শীর্ষ সচিবের অবৈধ প্রক্রিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা সনদ নেওয়ার বিষয়টি তুলে ধরা হয়। সরকারের এই পাঁচ শীর্ষ কর্মকর্তা ‘অবৈধ প্রক্রিয়ায়’ মুক্তিযোদ্ধা সনদ নেন বলে তদন্তে বেরিয়ে এলে তা বাতিলের সুপারিশ করে দুদক। ওই সুপারিশের পর গত বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর জামুকার বৈঠকে সনদ বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়। চার কর্মকর্তার সনদ ও গেজেট বাতিলের চিঠি গতকালই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

বলিউড সিনেমা ফ্যান্টমের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সংস্থা মেদসা স’ ফ্রঁতিয়ের অভিযোগ

স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারী আন্তর্জাতিক একটি দাতব্য সংস্থা মেদসা স’ ফ্রঁতিয়ের বা এমএসএফ বলিউডের একটি চলচ্চিত্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে।

সংস্থাটি বলছে, এই সিনেমার কারণে যুদ্ধ-কবলিত দেশগুলোতে তাদের কর্মকর্তারা বিপদের মুখে পড়তে পারেন।

এনজিওটি বলছে, ফ্যান্টম নামের ওই ছবিতে একজন সাহায্য-কর্মীকে অস্ত্রসহ এমনভাবে তুলে ধরা হয়েছে যাতে মনে হতে পারে ওই কর্মী তাদের সংস্থায় কাজ করছেন।

কিন্তু সংস্থাটি বলছে, তাদের নীতিতে কড়াকড়িভাবে অস্ত্র ব্যবহারের বিরুদ্ধে বলা হয়েছে।

এমএসএফের কর্মকর্তারা মনে করছেন, ছবিটির এধরনের কাহিনির কারণে তাদের নিরপেক্ষতার সুনাম নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

এই অভিযোগের জবাবে সিনেমাটির প্রযোজকদের কাছ থেকে এখনও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ছবিটিতে সাইফ আলী খান একজন সৈন্যের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন যিনি ২০০৮ সালে মুম্বাই শহরে সন্দেহভাজন হামলাকারী পাকিস্তানি জঙ্গিদের পাকড়াও করার চেষ্টা করছেন।

ছবিতে দেখা যায়, এই অভিযানে তিনি ‘মেডিসিন ইন্টারন্যাশনাল’ নামের একজন সাহায্য কর্মীর সহযোগিতা নিয়েছেন যে চরিত্রে অভিনয় করেছেন ক্যাটরিনা কাইফ।

ছবিটিতে অবশ্য মেদসা স’ ফ্রঁতিয়েরের নাম উল্লেখ করা হয়নি।

এমএসএফের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ছবির বিজ্ঞাপনে দেখা যাচ্ছে ছবিটির একটি চরিত্র একটি বন্দুক ধরে আছে, এমএসএফের কর্মকর্তারা যা কখনোই করবে না।

পাকিস্তানের একটি জঙ্গি গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা হাফিজ সাঈদের অভিযোগের পর সেদেশের একটি আদালত এই ছবিটি নিষিদ্ধ করেছে।

ভারতের অভিযোগ ওই গ্রুপটি মুম্বাই হামলার পরিকল্পনাকারী।

নবীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকায় অকাল বন্যা, অসংখ্য পরিবার পানি বন্দি ॥ মানবেতর জীবন যাপন

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও টানা বৃষ্টিতে নবীগঞ্জের কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদীর তীরবর্তী এলাকা উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের দীঘলবাক গ্রাম, কসবা, চরগাঁও, উমরপুর, গালিমপুর, মাধবপুর, কুমারকাঁদা (একাংশ), আহম্মদপুর, ফাদুল্লা, রাধাপুর, জামারগাঁও, রাধাপুর প্রাইমারী স্কুলসহ বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়েছে।

বাড়ি-ঘরে ও বাড়ির আঙ্গিনায় পানি উঠায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন পানিবন্দি মানুষ। এ ছাড়া ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের উমরপুর গ্রামসহ কয়েকটি গ্রামের বাড়ি ঘরে পানি উঠেছে। বিভিন্ন বিদ্যবিদ্যালযে যাওয়ার রাস্তা পানি নীচে তলিয়ে গেছে। তলিয়ে গেছে প্রায় কয়েক শত একর রোপা আমুন ধান। অপর দিকে অনেকের বেশ ক’য়েকটি মৎস্য খামার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। ইনাতগঞ্জ মনসুরপুর গ্রামের এনাম আহমদ জানান, তার মৎস্য খামারটি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় ১০লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এছাড়া কুশিয়ারা ডাইকের উপর পানি থৈ থৈ করছে।

Kushiyara

রাধাপুর নানু মিয়ার বাড়ির নিকটে ডাইকে ব্যাপক ফাটল দেখা দিয়েছে। যে কোন মুহূর্তে ওই ডাইক ভেঙ্গে যেতে পারে বলে ইউপি মেম্বার ফখরু মিয়া জানা। ওই ডাইক ভেঙ্গে গেলে নবীগঞ্জের কয়েক’টি ইউনিয়নে বন্যায় প্লাাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হবে বলে আশংখ্যা করছেন এলাকাবাসী। ডাইকে ফাটল দেখাার কারনে আতংকে রয়েছেন ওই এলাকার লোকজন।

এ ব্যাপারে জরুরি ভিত্তিতে কুশিয়ারা নদীর ওই ডাইকের মেরামত করে অকাল বন্যার হাত থেকে নবীগঞ্জবাসীকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। গত ক’দিন ধরে টানা বর্ষণ ও উজান থেকে পাহাড়ি ঢলের পানি নেমে আসায় কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। ফলে উল্লেখিত গ্রামের লোকদের বাড়িঘরে ও আঙ্গিনায় পানি উঠায় বন্দি জীবন যাপন করছেন তারা। ঘর থেকে বের হতে হলেই কলাগাছের ভেলা, নৌকা বা বাশেঁর সাকোঁ ব্যবহার করতে হচ্ছে ।

অনেকেই বাড়ি ঘর ছেড়ে আত্বীয় স্বজনের বাড়িসহ নিরাপদ স্থানে চলে গেছেন। প্রতি বছরই বর্ষা মৌসুমে দীঘলবাক ইউনিয়নের মানুষের দূর্বিষ জীবন যাপন করতে হয়। নদীর তীরবর্তী গ্রাম ও বাড়িঘর হওয়ার কারনে এ দূর্ভোগের শিকার হন তারা। এ ব্যাপারে গোলাম হোসেন বলেন, প্রতি বছরই নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে শত শত পরিবার নিঃস্ব হচ্ছে।

১২ জনকে হত্যা ও ৭০ জনকে আহত করার অভিযোগে ৩,৩১৮ বছরের কারাদণ্ড!

যুক্তরাষ্ট্রে সিনেমা হলে গুলি করে ১২ জনকে হত্যা ও ৭০ জনকে আহত করার অভিযোগে এক ব্যক্তির ৩,৩১৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দণ্ডিত ব্যক্তির নাম জেমস হোমস।

বুধবার (১৬ আগস্ট) যুক্তরাষ্ট্রের কলরাডো অঙ্গরাজ্যের আদালতে এ দণ্ড ঘোষণার সময় বিচারক বলেন, মানসিক অসুস্থতা আর নীতিভ্রষ্টতা দুটো একইসঙ্গে সত্য হতে পারে না।

আসামি হোমস কলরাডোর ডেনভার শহরের অরোরা এলাকার এক মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হলে হলিউডের ‘ব্যাটম্যান’ ছবিটির রাত্রিকালীন প্রদর্শনী চলাকালে আধাস্বয়ংক্রিয় রাইফেল, শটগান ও পিস্তল দিয়ে গুলি চালিয়ে হত্যাকাণ্ড ঘটান। এ সময় মাথায় হেলমেট, মুখে গ্যাস মুখোশ ও শরীরে বর্ম পরিহিত ছিলেন তিনি।

ওরাপাহো কাউন্টি ড্রিস্টিক আদালতের বিচারক কার্লোস সামুর বলেন, “আসামি মুক্ত সমাজে যেন আর কখনো পা রাখতে না পারেন আদালত সেই ব্যবস্থা করতে চায়। কোনো মামলায় যদি সর্বোচ্চ সাজা দেওয়ার থাকে তাহলে এটিই সেই মামলা।”

তিনি আরো বলেন, “আসামি কোনো সহানুভূতি পাওয়ার যোগ্য নন।”

হত্যাকাণ্ড থেকে বেঁচে ফিরে আসা লোকজন ও নিহতদের স্বজনেরা রায় ঘোষণার পর হাততালি দিয়ে আদালতের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান।

লিবিয়া থেকে উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশিদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে

লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, লিবীয় উপকূলের কাছে কয়েকশ অভিবাসন প্রত্যাশীকে নিয়ে ডুবে যাওয়া দু’টি নৌকায় নিহতদের মধ্যে শিশুসহ সাতজন বাংলাদেশি রয়েছেন।

আর জীবিত উদ্ধার হওয়া ৪৭ জনকে দেশে ফেরত আনা হবে।

লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম বিষয়ক কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম জানিয়েছেন,লিবীয় উপকূলে ডুবে যাওয়া নৌকা দু’টিতে বিভিন্ন দেশের কয়েকশো অভিবাসন প্রত্যাশীর সাথে শিশু এবং মহিলাসহ ৫৪জন বাংলাদেশি ছিল। এর মধ্যে ৪৭জন বাংলাদেশিকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে শিশুসহ নিহত সাতজন বাংলাদেশির মৃতদেহ দূতাবাসের কর্মকর্তাদের দেখতে দেয়া হয়নি।

কারণ মৃতদেহ দেখার জন্য এখনও কোন বিদেশি কূটনীতিককে সুযোগ দেয়া হচ্ছে না।

ঐ কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন, জীবিত উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশিদের মধ্যে মহিলাদের বাংলাদেশ দূতাবাসের হেফাজতে নেয়া সম্ভব হয়েছে।

বাকিরা ত্রিপোলি কর্তৃপক্ষের ডিটেনশন সেন্টারে রয়েছে।

এখন এই বাংলাদেশীদের দেশের ফেরত আনতে আইওএম এর সহায়তা নেয়া হবে।

মি: ইসলাম জানাচ্ছেন, লিবিয়ার বর্তমান নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতির কারণে এই বাংলাদেশিরা ইউরোপে অভিবাসী হওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

তিনি বলেন, নিরাপদ ও উন্নত জীবনের আশায় লিবিয়ায় বসবাসরত বিদেশিরা আগে থেকেই ওই দেশ ছাড়ছিলেন, তবে পরিবারসহ বাংলাদেশিরা লিবিয়া ছাড়ার চেষ্টা করছেন এমনটা প্রথমবারের মতো ঘটেছে।

এদিকে জাতিসংঘ সম্প্রতি ইউরোপ যাবার পথে শত শত অভিবাসী প্রত্যাশীর মৃত্যুর ঘটনা এবং পরিস্থিতিকে সংকট হিসেবে উল্লেখ করেছে।

জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, অভিবাসী প্রত্যাশীদের মৃত্যু ঠেকাতে ইউরোপের দেশগুলোকে সতর্কতার সাথে যৌথভাবে একটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তিনি অভিবাসী প্রত্যাশীদের জন্য নিরাপদ এবং আইনগত পথ বের করার জন্য সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

গতকালই লিবীয় উপকূলে কয়েকশ অভিবাসী প্রত্যাশীকে নিয়ে নৌকা ডুবেছে। অস্ট্র্রিয়ার পরিত্যক্ত এক লরিতে ৭১জন অভিবাসীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে।

ওমরাহ ভিসার নামে সৌদি আরবে মানব পাচারের অভিযোগ

বাংলাদেশে ১০৪ টি হজ্ব এজেন্সির বিরুদ্ধে ওমরাহ ভিসার নামে সৌদি আরবে মানব পাচারের অভিযোগ তদন্ত করতে যাচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

অভিযোগ রয়েছে যে গত মৌসুমে ১০৪ টি এজেন্সির মাধ্যমে ওমরাহ ভিসা নিয়ে সৌদি আরবে যাওয়া প্রায় ১১ হাজারের বেশি লোক মেয়াদ শেষে আর দেশে ফেরেন নি। এ কারণে বাংলাদেশীদের জন্যে ওমরাহ ভিসা ইস্যু করাই বন্ধ রেখেছে সৌদি আরব।

কর্মকর্তারা বলছেন তদন্তে যারা দোষী প্রমাণিত হবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ওমরাহ ভিসা আবার চালুর চেষ্টা করলে সৌদি আরবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আগে যারা ওমরাহ করতে গিয়ে ফিরে আসেননি তাদের এভাবে পাচারের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

এর সূত্র ধরে ১০৪টি এজেন্সিকে আগামী সপ্তাহে মন্ত্রণালয়ের পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটির সামনে উপস্থিত হতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব চৌধুরী বাবুল হাসান। সাথে নিয়ে আসতে বলা হয়েছে চুক্তিপত্র সহ আনুষঙ্গিক সব ডকুমেন্ট।

মি. হাসান বলেন, “অনেক ওমরাহ যাত্রী আসেনি। তাদের বিরুদ্ধে প্রকৃত অভিযোগগুলো গঠন করা হয়েছে। এখন তদন্ত কমিটি তাদের রিপোর্ট দেবে। কারণ অভিযোগ গুলো ইতোমধ্যেই এসেছে।”

তবে হজ্ব মৌসুমে এজেন্সিগুলোর অনেকেই এখন সৌদি আরবে বা হজ্বে লোক পাঠানো নিয়ে ব্যস্ত, এমন পরিস্থিতিতে এ তদন্ত কতটা সফল হবে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন বাংলাদেশিদের ওমরাহ ভিসা নিয়ে এ ধরনের অনিয়মের কারণে ইতোমধ্যে সৌদি সরকার দেশটির অন্তত ছটি এজেন্সির কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে।

পরে ওই এজেন্সিগুলোই মক্কায় বাংলাদেশ হজ্ব মিশনে বাংলাদেশি এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ করে। তবে বাংলাদেশের এজেন্সি এসোসিয়েশন নেতৃবৃন্দ সবকিছুর জন্যে দায়ী করছে সৌদি আরবের এজেন্সিগুলোকে। যদিও এসব নেতৃবৃন্দের এজেন্সির মাধ্যমে ওমরাহ করতে গিয়ে আর ফিরে না আসার অভিযোগও রয়েছে।

হজ্ব এসোসিয়েশন বা হাবের সভাপতি ইব্রাহিম বাহার বলছেন যারা চাকুরি সন্ধানে যান তারা ওমরাহ ভিসা নিয়ে সৌদি আরবে গিয়ে সেখানকার এজেন্সির সহায়তায় পালিয়ে গেছেন।

তিনি বলেন, “ওমরাহ পালনের ৯০ ভাগ কাজ হয় সৌদি আরবে। মাত্র দশ ভাগ হয় বাংলাদেশে।”

তার নিজের কোম্পানি থেকে পাঠানো ৬৭ জন ওমরাহ করতে গিয়ে আর ফিরে আসেনি, তারা কেন আসেনি জানতে চাইলে তিনি বলেন, “ওখানকার এজেন্সি জুলাইতে জানিয়েছে দু পরিবারের ১৫ জনের কথা। পরে বিস্তারিত জানাতে বললেও তারা আর জানায়নি।”

হজ্ব এজেন্সির বাইরে থাকা ট্রাভেল এজেন্সি অনেকগুলোর বিরুদ্ধেও একি অভিযোগ উঠেছে। এসোসিয়েশন অব ট্রাভেল এজেন্সি বা আটাবের সভাপতি মনজুর মোরশেদ মাহবুবের এজেন্সি থেকেও যারা ওমরাহ পালন করতে গিয়েছেন তাদের মধ্যে ৭৪ জন আর ফিরে আসেননি।

তবে মি. মাহবুব বলছেন এটি তাদের অনেক দেরিতে জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, “ তখন তো দেখেছি তার চলে এসেছে। কিন্তু এখন বলা হচ্ছে তারা আসেননি। এতদিন পর কি করবো এখন আমরা।”

এজেন্সিগুলো যাদের পাঠায় তাদের ফেরত আনার দায়িত্ব তাদেরই কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “দায়িত্ব এজেন্সিরই। সেভাবেই ফিরে আসছে। তবে অনেকেই আছেন ৫/৬শ লোক পাঠিয়েছে কিন্তু তার একজনই ফিরে আসেনি।”

কর্মকর্তারা আশা করছেন আগামী সপ্তাহের তদন্তের মাধ্যমে দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া গেলে শিগগিরই ওমরাহ ভিসা আবার চালু করা সম্ভব হবে।

তবে এখন হজ্ব মৌসুমে এজেন্সিগুলো প্রচণ্ড ব্যস্ত থাকায় তদন্ত কার্যক্রমের সফলতা নিয়ে কিছুটা সংশয়ও রয়েছে অনেকের মধ্যে।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net