শিরোনাম

Daily Archives: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বার্মিংহাম আল ইসলাহ’র দ্বি-মাসিক সভা ও ঈদ পুনর্মিলনী: রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধের আহ্বান

বার্মিংহাম প্রতিনিধি :  আনজুমানে আল ইসলাহ ইউকে বার্মিংহাম শাখার উদ্যোগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুরে বার্মিংহাম বাংলাদেশ মাল্টিপারপাস সেন্টারে পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উপলক্ষে ঈদ পুনর্মিলনী ও দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শাখার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট মাওলানা আতিকুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি মাওলানা মোঃ হুসাম উদ্দিন আল হুমায়দীর সঞ্চালনায় উক্ত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শাখার ক্যাশিয়ার হাজী সাহাব উদ্দিন, প্রেস ও পাবলিসিটি সেক্রেটারি মাওলানা এহসানুল হক, ট্রেইনিং এন্ড এমপ্লয়মেন্ট সেক্রেটারি মাওলানা বদরুল হক খান, এক্সিকিউটিভ মেম্বার হাজী তারা মিয়া, হাজী আব্দুল গফুর, হাজী মুদ্দছির আলী প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, যুগ যুগ ধরে বার্মায় রোহিঙ্গারা অমানবিক ভাবে নির্যাতিত হয়ে আসছেন। রোহিঙ্গা মুসলমানদের নিজেদের দেশ থেকে উৎখাত করে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। নারী-পুরুষ, অসহায় রোগী, শিশুসহ কেউই বার্মার সরকারী বাহিনী এবং বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের আক্রমন থেকে রেহাই পাচ্ছে না। অসংখ্য মানুষকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারা হয়েছে।

বক্তারা বলেন, বার্মা থেকে রোহিঙ্গা মুসলমানদের চিরতরে নিশ্চিহ্ন করে দেয়াই এই আক্রমনের লক্ষ। তাঁরা বলেন, রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর এই অমানবিক নির্যাতন বন্ধ করতে বিশ্বের মুসলমান রাষ্ট্রগুলোকে ভ’মিকা রাখতে হবে। তাঁরা আরও বলেন, বাংলাদেশে পালিয়ে আসা লাখো লাখো রোহিঙ্গা মুসলমানদের সাহায্য করা বিশ্বের মুসলমান রাষ্ট্রগুলোর অবশ্য কর্তব্য।

বক্তারা অবিলম্বে এই নির্যাতন বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশে শান্তিতে বসবাসের সুযোগ দেয়ার জন্য বার্মার সরকারে প্রতি আহ্বান জানান।

শাহ সোহেল আমিন’র কবিতা

IMG_2005

 

 

 

মনুষ্যং শরণং গচ্ছামি

-শাহ সোহেল আমিন

 

প্রিয়তমা তোমার শুভ্রবুক হতে নাভিমূল অবধি

“আই”এর উগ্রতায় ব্যুৎক্রান্ত-

হরিয়েছো দেহের দুধে আলতা বালিকারং

নুয়ে পড়েছো দণ্ডিত ঔরসের ফুজিয়ামা ভারে।

অমীমাংসিত বলকানোর ঘনসঙ্গমে

তোমারই নিষিদ্ধ সম্পাদনা-ওয়শিংটন

এখন লাইকান থ্রপের পরিব্রাজক;

জেরুজালেম এক বিষাক্ত শঙ্খচুড়ের নাম-

অং সান যেনো ক্ষুধার্ত শকুনের আরেক নেকড়ে বসন!

 

হে লও পিয়াসী আরাকান-

বিদীর্ণ করেছ কি পাতা ও কুড়ির ত্রিশরণ,

মগেরমুল্লুকে হারিয়েছ কি-

“বুদ্ধং শরণং গচ্ছামি

ধন্মং শরণং গচ্ছামি

শঙ্ঘং শরণং গচ্ছামি”

-তবে কেনো হোঁদল আর্তনাদে পরিতৃপ্ত রাখাইনের বাতাস-

নাফের সুনিপুণ ধারায় রক্তের নির্গতজল

সোনালী দিনের ডিমপাড়া ঘোড়ারএন্ডায়

উদ্বাস্তের অনিশ্চিত বাস-

বেয়নেটের খোচায় নেতিয়ে পড়া

ষোড়শীর মাংশ স্পর্শ করে গণ্ডারের ঠোঁট

উনুনপোড়া মোরগের তন্দুরি হয় জঠরের সুপ্ত শিশু!

 

প্রিয়তমা পরিশোধিত হও-

সুললিত করো তোমার বেবন্দেজশরীর

তুন্দের উঁকি দেওয়া মাইলেনেওরাদের

উদ্ঘাটন করো; সামঞ্জস্য করো-

মনুষ্যং শরণং গচ্ছামি

মনুষ্যং শরণং গচ্ছামি

মনুষ্যং শরণং গচ্ছামি।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net