শিরোনাম

নবীগঞ্জ উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যানদের উন্নয়ন সমন্বয় সভা বর্জন

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) সংবাদদাতা:নবীগঞ্জ ৮নং সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাজু আহমদ চৌধুরী ও তার সহোদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীন কর্তৃক ষড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা জিডি এন্ট্রির প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নবীগঞ্জ উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভা বর্জন করেছেন ১৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা সদস্যবৃন্দ। সভায় তাঁরা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা অপসারণসহ জিডি এন্ট্রি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন। এর মধ্যে মিথ্যা জিডি প্রত্যাহার করা না হলে আইনশৃংখলা কমিটির সভা বর্জনসহ কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। পরে তাৎক্ষনিকভাবে উন্নয়ন সমন্বয় সভা স্থগিত করেন কমিটির সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী। এদিকে আগামী শনিবার এ ঘটনার পরিপেক্ষিতে নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ এক জরুরি সভার ডাক দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা হলরুমে নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভা উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হয়। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নবীগঞ্জ-বাহুবল আসনের এমপি এম, এ মুনিম চৌধুরী বাবু। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজিনা সারোয়ার, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীনসহ সকল সদস্য। সভার শুরুতেই নবীগঞ্জ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সমিতির সভাপতি মোঃ ইজাজুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুর রহমান মুকুল বক্তব্য রাখেন। তারা বক্তব্যে বলেন, নবীগঞ্জ ৮নং সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাজু আহমদ চৌধুরী ও তার সহোদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীন কর্তৃক ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা জিডি এন্ট্রি করেছেন। তাঁর দায়েরকৃত জিডি এন্ট্রি ৪৮ঘন্টার মধ্যে প্রত্যাহার করা না হলে উন্নয়ন সমন্বয় সভা, আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা বর্জন অব্যাহত রাখবেন বলে জানান। তারা এই বলে সভা বয়কট করে সভাস্থল ত্যাগ করেন। এর পর ১৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা সদস্যাগণ সভাস্থল বর্জন করে চলে আসেন। পরে তারা উপজেলা চেয়ারম্যানের রুমে সবাই আবার এক সভায় মিলিত হন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, উ্পজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা বেগম, ইউপি চেয়ারম্যান ইজাজুর রহমান, ইমদাদুর রহমান মুকুল, এড.জাবিদ আলী, বজলুর রশিদ, আশিক মিয়া, আবু সিদ্দিক, নজরুল ইসলাম, মুহিবুর রহমান হারুন, সত্যজিত দাশ, আলী আহমদ মুসা, আবু সাঈদ এওলা, ছাঈমুদ্দিন, সাজু আহমদ চৌধুরী প্রমুখ।
উল্লেখ্য যে, গত ৩১ মে রাতে নবীগঞ্জ উপজেলা সদর ৮নং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাজু আহমদ চৌধুরী ও তার সহোদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীন হুমকির অভিযোগে জিডি এন্ট্রি করেন। এরপর নবীগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। ফুঁসে উঠে উপজেলার রাজনৈতিক মহলসহ সুশীল সমাজের লোকজন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীন এর অপসারণ দাবি করে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা একাধিক স্ট্যাটাস দেন।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা উন্নয়ন সম্বনয় কমিটির সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, চেয়ারম্যানগণ উন্নয়ন সমন্বয় সভা বর্জন করার কারণে আমি সভা স্থগিত করেছি। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে। মিথ্যা জিডি এন্ট্রি প্রত্যাহার করা না হলে চেয়ারম্যানগণ উন্নয়ন সমন্বয় ও আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় যোগদান করবেন না এবং ঐ কর্মকর্তার অপসারণ গণদাবি করেছেন ।
নবীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভীন সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ব্যাপারে বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

Scroll To Top

Design & Developed BY www.helalhostbd.net